মালয়েশিয়ায় আটক বাংলাদেশিদের খোঁজ নিলেন হাইকমিশনার

0

মালয়েশিয়ার তেরেঙ্গানু প্রদেশের আজিল ইমিগ্রেশন ক্যাম্পে থাকা বাংলাদেশিদের খোঁজ-খবর নিয়েছেন দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো. গোলাম সারোয়ার।।

রোববার (২৮ নভেম্বর) সকালে হাইকমিশনার ক্যাম্পে থাকা বাংলাদেশিদের সঙ্গে সাক্ষাতের পর ক্যাম্প কমান্ডারের সঙ্গে বৈঠক করেন। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশ হাইকমিশনের শ্রম কাউন্সেলর-২ মো. হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল ও কমার্শিয়াল কাউন্সেলর মো. রাজিবুল আহসান।

হাই কমিশনার বাংলাদেশিদের দেখভাল করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে, মালয়েশিয়ান কর্র্তপক্ষের কাছে বাংলাদেশিদের দ্রুত দেশে ফেরত পাঠানো এবং অবস্থানকারীদের মালয়েশিয়াতে পুনরায় কাজে লাগানোর জন্য অনুরোধ জানান

কমান্ডার বন্দিদের বিষয়ে ক্যাম্পের উদ্যোগ ও কার্যক্রম তুলে ধরে জানান, মালয়েশিয়ায় কর্মের, পড়ালেখা বা ভ্রমণের উদ্দেশ্যে আগত বাংলাদেশিরা ইমিগ্রেশন সম্পর্কিত নানান অনিয়মের কারণে গ্রেফতার হলে বিচারে জেল জরিমানা এবং শেষে দেশে ফেরত পাঠানো হয়। দেশে ফেরত পাঠানোর আগ পর্যন্ত ইমিগ্রেশন ক্যাম্পে অবস্থান করে এবং মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন ফ্লাইটে তুলে দিয়ে প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে।

এক্ষেত্রে যাদের ভ্যালিড পাসপোর্ট আছে তাদের জন্য শুধুমাত্র ফ্লাইট টিকিট দিতে হয়। যাদের ভ্যালিড পাসপোর্ট নেই তাদের জন্য হাইকমিশন থেকে ট্রাভেল পারমিট ইস্যু করে।

তিনি দ্রুত দেশে ফেরত পাঠানো এবং সম্ভাব্য আইনি প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন।

জানা গেছে, বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী নাগরিকত্ব নিশ্চিত না হয়ে কারো অনুকূলে ট্রাভেল পারমিট ইস্যু করা যাবে না। এক্ষেত্রে নাগরিকত্ব নিশ্চিত হয়ে হাইকমিশন ট্রাভেল পারমিট ইস্যু করছে। যাদের পরিবার ফ্লাইট টিকিট দিতে অসমর্থ বা সংগ্রহ করা সম্ভব হয় না সেক্ষেত্রে হাইকমিশন ফ্লাইট টিকিট ব্যবস্থা করে।

অন্যদিকে মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন যাদের রিক্যালিব্রেসি প্রোগ্রামে নাম নিবন্ধন করেছে, তাদের কোম্পানি কাগজপত্র ক্যাম্পে দাখিল করলে তাদের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়।

হাইকমিশনারের ক্যাম্প পরিদর্শনের সময় বাংলাদেশ হাই কমিশনের শ্রম উইংয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো আনোয়ারুল ইসলাম এবং কল্যাণ সহকারী মো. মোকসেদ আলীও উপস্থিত ছিলেন।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন