ওমানে সাত মাস পর পুনরায় খুলল বিমানবন্দর

0

ওমানে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে ৭ মাস বন্ধ থাকার পর বৃহস্পতিবার (১ অক্টােবর) নিয়মিত ফ্লাইটের জন্য বিমানবন্দরগুলি আবার চালু হয়েছে। কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুরু হয়েছে ফ্লাইট চলাচল এবং যাত্রী আগমন।

বিমানবন্দর চালু হওয়ার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স এবং ওমান থেকে সালামএয়ার ঢাকা ও চট্টগ্রাম রুটে নিয়মিত ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে।

যাত্রীদের প্রবেশ নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে করোনাভাইরাস পরীক্ষার বিশেষ ব্যবস্থাসহ নানা প্রস্তুতি নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ওমান বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “আমাদের বিমানবন্দরগুলির মধ্য দিয়ে ভ্রমণকারী সকল যাত্রীদের আমরা স্বাগত জানাই এবং নির্দেশিকাগুলি মেনে চলার উপর গুরুত্ব দিচ্ছি।”

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নির্ধারিত প্রয়োজনীয়তা অনুসারে, ওমানে প্রবেশের সময় ভ্রমণকারীদের নিজ খরচে একটি বাধ্যতামূলক পিসিআর পরীক্ষা করতে হবে। সেই প্রেক্ষিতে বিমানবন্দরে নাগরিক এবং প্রবাসীদেরদের ‘ড্রাইভ-থ্রু’ বা তড়িৎ পদ্ধতিতে করোনাভাইরাসের পিসিআর পরীক্ষার সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে।

বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, “চীনা কোম্পানি বিজিআই-এর সহযোগিতায় সাপ্লাই ইন্টারন্যাশনালের সাথে যৌথ উদ্যোগে ওমানের মাসকাট, সালালাহসহ ওমানের বিমানবন্দরগুলোতে, কোভিড-১৯ পরীক্ষার সুবিধা স্থাপন করা হয়েছে। স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা নির্দেশনা অনুযায়ী পিসিআর পরীক্ষার মাধ্যমে দ্রুত করোনা সনাক্তকরণ করে আমাদের বিমানবন্দরগুলো যাত্রী, কেবিন ক্রু, কর্মচারী এবং বিমানবন্দর ব্যবহার করা সকল ব্যক্তিদের ঝুঁকি দূর করতে পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নিয়েছি।

আগের খবর : কাল থেকে মাস্কাট-চট্টগ্রাম-মাস্কাট রুটে সালামএয়ারের নিয়মিত ফ্লাইট

পিসিআর পরীক্ষার জন্য তারাসুদ+ মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনটি আগে থেকে মোবাইলে ডাউনলোড করে নিতে হবে যাত্রীদের। এটি ব্যবহার করে তারা তাদের পিসিআর পরীক্ষাটি প্রি-বুক করে নিবেন। অ্যাপ্লিকেশনটি যাত্রীদের প্রাসঙ্গিক সব বিবরণ সংগ্রহ করে নিবে। এর মাধ্যমে অনলাইনে তারা সহজেই পিসিআর পরীক্ষার জন্য নির্ধারিত ফি পরিশোধ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে তাদের ২৫ ওএমআর পরিশোধ করতে হবে।

অ্যাপটি ডাউনলোড করে অনলাইনে তাদের পরীক্ষার নিবন্ধন করলে যাত্রীরা বিমানবন্দরের পরীক্ষা কেন্দ্রে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করার দূর্ভোগ পোহানোর ঝামেলা থেকে মুক্ত হবেন।

যদি কারও পরীক্ষার ফলাফল নেতিবাচক হয়, তাহলে ৭ দিনের কম সময়ের জন্য ওমানে আসা যাত্রীরা স্বাভাবিকভাবে সেখানে প্রবেশ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে সেখানে অবস্থানের সময় তারা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশিকা মেনে চলবেন। অন্যদিকে ৭ দিনের বেশি থাকা যাত্রীদের একটি রিস্টব্যান্ড পরতে হবে এবং ১৪ দিনের কোয়ারান্টাইন নীতি অনুসরণ করতে হবে। যদি তাদের পরীক্ষা ইতিবাচক হয়, তবে সেল্ফ-কোয়ারেন্টাইন বিধি মেনে চলতে হবে।

আগেই ঘোষণা করা হয়েছিল, ওমানে ফিরতে প্রবাসীদের মোফার পূর্ব অনুমতির আর প্রয়োজন নেই। তবে আসার আগে সকল যাত্রীকে ৩০ দিনের একটি আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য বিমা করতে হবে।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।