ওমানের ওয়াদি কবির ও হামরিয়ার লকডাউন ওঠছে রবিবার

ডেলিভারি পেশায় ওমানিকরণের সিদ্ধান্ত

0

করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘ ৩ মাস বন্ধ থাকার পর রবিবার থেকে ওমানের রাজধানী মাস্কাটের বাংলাদেশি অধ্যুষিত ওয়াদি কবির শিল্পাঞ্চল ও হামরিয়া এলাকার লকডাউন তুলে নেওয়া হচ্ছে।

অন্যদিকে ওমানে রেস্তোঁরা ও ক্যাফেগুলির খাবার ডেলিভারি পেশা ওমানিকরণ করা হবে। বর্তমানে, রেস্তোঁরা ও ক্যাফে থেকে সকল খাদ্য বিতরণ প্রবাসীরা করছেন।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) দেশে করোনাভাইরাসের সার্বিক পরিস্থিতির বিষয়ে সুপ্রিম কমিটির একাদশ সংবাদ সম্মেলনে এসব সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করা হয়।

ওমানের স্বাস্থ্য মন্ত্রী ড. আহমেদ আল সাইদী সাংবাদিকদের বলেন, রবিবার ওয়াদি কবির শিল্পাঞ্চল এবং হামরিয়াহ উভয়ই উন্মুক্ত করা হবে। করোনভাইরাস মামলার সংখ্যা বৃদ্ধির কারণে দুটি এলাকা বন্ধ রয়েছে।

মন্ত্রী জানান, মাস্কট পৌরসভা সকাল ৭ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ পর্যন্ত ওয়াদি কবির শিল্পাঞ্চল এবং হামরিয়ায় বাণিজ্যিক কার্যক্রমে চালুর বিস্তারিত পরিকল্পনা ঘোষণা করবে। বৃহস্পতি ও শুক্রবার এই দুই এলাকায় কোন বাণিজ্যিক কার্যক্রম চলবে না। অন্যদিকে মাতরাহ সৌওক বন্ধ থাকবে।

পরিবহনমন্ত্রী ডা. আহমেদ আল ফুটাইসি বলেন, পরিবহন মন্ত্রণালয় ডেলিভারি পেশাকে প্রবাসীদের পরিবর্তে ওমানিদের স্বীকৃতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রেস্তোঁরা ও ক্যাফেগুলির জন্য ওমানিস ডেলিভারি পেশার সিদ্ধান্ত শীঘ্রই অনুমোদিত হবে।”

তিনি আরও বলেন, প্রবাসীদের মধ্যে কোভিড -১৯ (করোনাভাইরাস) এর ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে শীঘ্রই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। আমাদের জানা মতে প্রবাসীদের মধ্যে আরও অনেক করোনাক্রান্ত রয়েছেন।”

সংবাাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আহমেদ আল সাদী আরও জানান, নাগরিক ও প্রবাসীরা সামাজিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নির্দেশিকা অবহেলা করা অব্যাহত রাখলে চিকিত্সার প্রয়োজনে কিছু ক্ষেত্রে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে। তাই ভাইরাসটির বিস্তার রোধে সাবধানী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দেশের সবাইকে অনুরোধ করেন।

মন্ত্রী বলেন, “স্বাস্থ্য পদ্ধতি এবং সামাজিক দূরত্বের সাথে সম্মতি না থাকায় সম্প্রতি মামলার সংখ্যা বেড়েছে। তবে কিছু বাণিজ্যিক কার্যক্রম চালু হওয়ার কারণে ওমানে করোনভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার বিষয়ে সরকারের কাছে কোন তথ্য নেই।”

তিনি বলেন, “বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলিকে প্রথমে তাদের কর্মচারিদের সুরক্ষার যত্ন নিতে হবে এবং তারপরে দর্শনার্থী বা কাস্টমারদের। প্রতিষ্ঠানের কোনও কর্মচারীর যদি ভাইরাসের কোনও লক্ষণ দেখা যায় তবে তাকে কাজে আসতে দেওয়া যাবে না।। করোনা ছাড়া অন্য দীর্ঘস্থায়ী রোগের লোকেরা কাজ করতে আসতে পারে কি না, তা নির্ধারণের জন্য কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হবে” -যোগ করেন মন্ত্রী।

এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ধোফার গভর্নরেট বন্ধের সিদ্ধান্ত পর্যালোচনাধীন রয়েছে এবং প্রয়োজনে পরিবর্তনও করা যেতে পারে। তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন যে কয়েকটি পর্যটন অঞ্চল বন্ধ বা সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত সুপ্রিম কমিটি তার সভায় গ্রহণ করবে।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

Loading...