‘সেরা লাক্সারি হোটেল’ স্বীকৃতি পেল রেনেসাঁ ঢাকা

0

বাংলাদেশের সেরা লাক্সারি হোটেলের স্বীকৃতি পেলো রেনেসাঁ ঢাকা গুলশান হোটেল। ২০২০-২০২১ সালের দ্যা এশিয়া প্যাসিফিক ইন্টারন্যাশনাল হোটেল অ্যাওয়ার্ডে এই স্বীকৃতি পায় হোটেলটি। প্রথম কোন বাংলাদেশি হোটেল মর্যাদাপূর্ণ ‘সেরা লাক্সারি’ হোটেল হিসেবে স্বীকৃতি পেলো। ইন্টারন্যাশনাল প্রোপার্টি মিডিয়ার উদ্যোগে দ্যা এশিয়া প্যাসিফিক ইন্টারন্যাশনাল হোটেল অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

ডাঃ এইচ বি এম ইকবাল প্রিমিয়ার গ্রুপের চেয়ারম্যান এবং প্রিমিয়ার হোটেল ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি বাংলাদেশে রেনেসাঁ ঢাকা গুলশান হোটেল পরিচালনা করছে।

প্রিমিয়ার হোটেল ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির চেয়ারম্যান ডাঃ এইচ বি এম ইকবাল ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মইন ইকবাল বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য ছিলো লাইফস্টাইল ব্র্যান্ড ম্যারিওটের মান বজায় রেখে অতিথিদের লাক্সারি সেবা উপভোগের আয়োজন করা। আমরা সত্যিকারভাবে প্রতিটি মূহুর্তের ম্যারিওটের সেরা অংশীদার হয়ে সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছি এবং আমাদের অতিথিদের জন্য আনন্দদায়ক অভিজ্ঞতা দিতে কাজ করে যাচ্ছি। আর এমন সময় এ স্বীকৃতি আমদেরকে আরও অনুপ্রানিত করবে।’

বাংলাদেশি প্রিমিয়ার হোটেল ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি ২০১০ সালে ডা. এইচ বি এম ইকবাল প্রিমিয়ার গ্রুপের চেয়ারম্যান ও মইন ইকবাল ব্যবস্থাপনা পরিচালক এর হাত ধরে যাত্রা শুরু করে। বাংলাদেশি প্রিমিয়ার হোটেল ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি সফলতায় যুক্ত হয়েছে সদ্য স্বীকৃতি প্রাপ্ত হোটেল, ব্যানকুয়েট হল, রেস্টুরেন্টসহ আরও নানান সুবিধা।

প্রিমিয়ার গ্রুপের দীর্ঘ ৪০ বছরের পথচলায় সমস্ত ক্রেতা, বিনিয়োগকারী এবং অংশীদারদের সর্বোচ্চ সেবা প্রদান করে আসছে এবং তারই ধারাবাহিকতায় স্বীকৃতি স্বরুপ প্রিমিয়ার ব্যাংক একটি আর্ন্তজাতিক সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে সাফল্যর সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। এগুলো ছাড়াও, প্রিমিয়ার হোটেল ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিতে যুক্ত আছে হিলটন ঢাকা হোটেল, যা খুব শীঘ্রই সবার সামনে আসবে।

রেনেসাঁ ঢাকা গুলশান হোটেলের মহাব্যবস্থাপক আজীম শাহ্ বলেন, ‘আমরা যখন আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছি, তখন থেকেই আমাদের লক্ষ্য ছিলো এই খাতে নেতৃত্বে দেওয়ার, সেরা হওয়ার। এজন্য অতিথিদের আর্ন্তজাতিক মানের সেবা দিতে কাজ করছি। আমাদের এই প্রচেষ্টা বিশ্বজুড়ে ভ্রমনকারীদের এক অনন্য অভিজ্ঞতা দেবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা গর্বিত এবং খুবই আনন্দিত এমন একটি সম্মানসূচক স্বীকৃতি পেয়ে। যা আমাদের সবার কাজের আগ্রহ আরও বাড়িয়ে দিবে এবং আমরা আমাদের অতিথিদের জন্য আরও নতুন নতুন সেবা প্রদানে দ্বিগুন উদ্যোগে কাজ করে যাব।’

৮০ জন বিশেষজ্ঞ নিয়ে গঠিত প্যানেল এই অ্যাওয়ার্ড নির্বাচনে বিচারকদের দায়িত্ব পালন করেন। সারা বিশ্ব জুড়ে ছয়টি অঞ্চল ও ১৭টি ক্যাটাগরিতে হসপিটালিটি শিল্পে অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়। এই অ্যাওয়ার্ড বিশ্ব জুড়ে হোটেলগুলোর মানের স্বীকৃতির জন্য আর্ন্তজাতিকভাবে সমাদৃত।

কোরিয়ার কৃষি প্রযুক্তি ও কৃষি গবেষণা : বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট ও চ্যালেঞ্জ

কোরিয়ার কৃষি প্রযুক্তি ও কৃষি গবেষণা : বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট ও চ্যালেঞ্জ২৯ আগস্ট, শনিবার – দক্ষিণ কোরিয়া : রাত ১০.৩০__বাংলাদেশ : সন্ধ্যা ৭.৩০ সঞ্চালনায় : অনিরুদ্ধ সরকার, পিএইচডি ফেলো, কিয়ংপুক ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, দক্ষিণ কোরিয়া তত্ত্বাবধান : ওমর ফারুক হিমেল অতিথি : ড. উজ্জল কুমার নাথ , অধ্যাপক, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহড. মো. ওমর শরীফ- সহকারী অধ্যাপক , সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেটলিয়াকত আলী-পি.এইচ.ডি. ফেলো , কিয়ংপুক ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, দক্ষিণ কোরিয়া

Posted by AkashJatra on Saturday, August 29, 2020

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।