পাকিস্তানে উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত: ৯২ জনের মৃত্যু নিশ্চিত

0

পাকিস্তানের করাচিতে যাত্রীবাহী উড়োজাহাজ বিধ্বস্তের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৯২ জন নিহত হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছে দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগ। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এছাড়া নিহতদের মধ্যে কতজন ওই বিমানের আরোহী না স্থানীয় বাসিন্দা তা নিশ্চিত করা যায়নি।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মিরান ইউসুফ আল জাজিরাকে জানিয়েছেন, করাচির বৃহত্তম সরকারী হাসপাতাল জিন্নাহ পোস্ট গ্র্যাজুয়েট মেডিকেল সেন্টারে ৬০ টি মরদেহ এবং রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত আর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ৩২ জনের মরদেহ রাখা হয়েছে । এখনও পর্যন্ত ১৯ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে।

পাকিস্তান ইন্টারন্যাশানাল এয়ারলাইন্সের (পিআইএ) ফ্লাইট পিকে -৮৩০৩-এর কমপক্ষে দু’জন পুরুষ যাত্রী দুর্ঘটনায় বেঁচে গিয়েছিলেন বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র আল জাজিরাকে জানিয়েছেন। বেঁচে থাকা দু’জনকে করাচির হাসপাতালে চিকিত্সা করা হচ্ছে।

দেশটির বিমান চলাচল কর্মকর্তারা জানান, শুক্রবার পিআইএর উড়োজাহাজ এ-৩২০ এ, ৯১ জন যাত্রী এবং ৮ জন বিমান কর্মী ছিলেন। লাহোর থেকে বিমানটি যাত্রা শুরু করে পাকিস্তানের অন্যতম ব্যস্ত একটি বিমানবন্দর করাচির জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যাচ্ছিল।


প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিমানটি বিধ্বস্তের আগে দুই থেকে তিন বার অবতরণের চেষ্টা করে। কিন্তু শেষমেশ করাচির ঘনবসতিপূর্ণ আবাসিক এলাকায় মডেল কলোনির বাড়িঘরের উপর বিধ্বস্ত হয় উড়োজাহাজটি।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জিন্নাহ বিমানবন্দর থেকে বিমানটি মাত্র প্রায় এক মিনিটের দূরত্বে ছিল।

শাকিল আহমেদ নামে স্থানীয় একজন বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, বিমানটি প্রথমে একটি মোবাইল টাওয়ারে আঘাত করে। এরপর বাড়ির উপরে বিধ্বস্ত হয়ে পড়ে।

দেশটির সরকারি কর্মকর্তারা আশঙ্কা করছেন, দুর্ঘটনায় আরও অনেকে হতাহত হয়েছে। উদ্ধার কাজ অব্যাহত রয়েছে।


পাকিস্তানের টিভি ফুটেজ থেকে দেখা গেছে, ওই এলাকার বহু বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একজন প্রত্যক্ষদর্শী মোহাম্মদ উজায়ের বিবিসি উর্দু বিভাগকে জানিয়েছেন, বিকট আওয়াজ শুনে তিনি বাইরে বেরিয়ে আসেন।

তিনি বলেন, প্রায় চারটি বাড়ি পুরো বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। প্রচুর ধোঁয়া আর আগুন জ্বলছে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এক টুইট বার্তায় জানান, দুর্ঘটনার খবরে তিনি মর্মাহত এবং দু:খিত। সেইসঙ্গে অবিলম্বে ঘটনার তদন্তের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। বিবিসি, ডন।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

Loading...