জার্মানির বৃহত্তম মসজিদে শুক্রবার আজান সম্প্রচারের অনুমতি

0

জার্মানির বৃহত্তম মসজিদ কোলন কেন্দ্রীয় মসজিদে প্রতি শুক্রবার লাউডস্পিকারে আজান সম্প্রচারের অনুমতি দেওয়া হবে। কোলন শহর এবং সেখানের মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে নিষেধাজ্ঞা শিথিলের একটি চুক্তির পর এ সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে শহর কর্তৃপক্ষ।

সোমবার রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২ বছরের এই উদ্যোগ অনুযায়ী কোলনের ৩৫টি মসজিদকে প্রতি শুক্রবার দুপুর থেকে বিকেল ৩টার মধ্যে পাঁচ মিনিট সময় পর্যন্ত আজান সম্প্রচারের অনুমতি দেওয়া হবে। এর মধ্যে আছে- ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠিত কোলন কেন্দ্রীয় মসজিদ।

কোলনের মেয়র হেনরিয়েট রেকার টুইট করেছেন, মুয়াজ্জিনের আজানের অনুমতি দেওয়া আমার কাছে একটি সম্মানের বিষয়।

জার্মানির কোলন শহরতলির কেন্দ্রীয় মসজিদের ভেতরে সেখানকার মুসলিমরা। ছবি: উইকি কমেন্স
জার্মানির কোলন শহরতলির কেন্দ্রীয় মসজিদের ভেতরে সেখানকার মুসলিমরা। ছবি: উইকি কমেন্স

শহর কর্তৃপক্ষ বলেছে, শুক্রবার আজান সম্প্রচার করতে চাওয়া মসজিদগুলোকে লাউডস্পিকারের শব্দসীমা মেনে চলতে হবে। একইসঙ্গে প্রতিবেশীদের বিষয়টি আগাম অবহিত করতে হবে।

জার্মানিতে তুর্কি মুসলিমদের সংগঠন ডিটিব মসজিদটি নির্মাণ করেছে৷ ইউরোপের অন্যতম বড় এবং জার্মানির সবচেয়ে বড় এই মসজিদটির নির্মান কাজ শুরু হয় ২০০৯ সালে এবং কাজ শেষ হয় ২০১৭ সালে৷ তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান মসজিদটির উদ্বোধন করেছিলেন ।

‘নন-অটোমান’ ডিজাইন অনুসরন করে মসজিদটি তৈরি এটির আয়তন ৪৫০০ বর্গমিটার৷ একসঙ্গে দুই থেকে চার হাজার মুসল্লির নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা রয়েছে৷

কংক্রিট এবং কাঁচের দেয়াল ও গম্বুজ রয়েছে৷ দু’টি মিনারতের উচ্চতা ৫৫ মিটার করে৷ আর মসজিদের ভেতরে দেয়ালে বিভিন্ন ক্যালিগ্রাফি রয়েছে৷

মসজিদটির নকশা করেছেন পল ব্যোম৷ তিনি এবং তাঁর বাবা মূলত গির্জার ডিজাইন করার জন্য বিখ্যাত৷ তবে সমজিদটি তৈরির মাধ্যমে তিনি তাঁর দক্ষতাকে অন্যস্তরে নিয়ে গেছেন৷

নামাজের পাশাপাশি সেখানে বিভিন্ন ধর্মের মধ্যে সংলাপ, খেলাধুলা আয়োজনের ব্যবস্থা এবং দোকান ও লাইব্রেরি রয়েছে৷

জার্মানিতে প্রায় ৪.৫ মিলিয়ন মুসলিমের বসবাস এবং তারা সেদেশের অন্যতম বৃহত্তম একটি ধর্মীয় সংখ্যালঘু গোষ্ঠী।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন