ওমানে ফিরতে লাগবে স্বাস্থ্যবীমা ও করোনা পরীক্ষা

0

ওমানে ফিরে আসা যাত্রীদের অবশ্যই ৩০ দিনের বীমা করতে হবে যা করোনাভাইরাস চিকিৎসার ৩০ দিনের খরচ বহন করবে। এছাড়া সকল আগত যাত্রী পিসিআর পরীক্ষা করা হবে এবং তাদের অবশ্যই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

১ অক্টোবর দেশের বিমানবন্দরগুলি পুনরায় চালু করার আগে রবিবার দেশটির বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (সিএএ) জারি করা নতুন নির্দেশিকায় এ তথ্য দেওয়া হয়েছে।

নতুন নির্দেশিকায় বলা হয়েছে “ওমানে আগত সকলকে পিসিআর পরীক্ষায় যেতে হবে, যার ফলাফল এক থেকে সাত দিনের মধ্যে লাগতে পারে এবং ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। কোয়ারেন্টিনের সময়কালে অবস্থান মনিটরিংয়ের জন্য সকলকে অবশ্যই একটি ইলেকট্রনিক ব্রেসলেট পড়তে হবে।

সিএএ আরও যোগ করেছে যে, “ওমানে আগত বিদেশি নাগরিকদের অবশ্যই তাদের সংরক্ষিত আবাসনের নিশ্চয়তা প্রদর্শন করতে হবে এবং তাদের ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে। তবে, দেশে আগত বিদেশি কূটনীতিক ও বিমান ক্রুদেরদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার অনুমতি রয়েছে।”

ওমান প্রবেশের অনুমতির বিষয়ে সিএএ উল্লেখ করেছে যে, “অ-ওমানি বা প্রবাসীরা তাদের স্পন্সর বা জাতীয় বিমানসংস্থা ওমান এয়ার এবং সালামএয়ারের মাধ্যমে দাখিল করা আবেদনের ভিত্তিতে ওমানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দেওয়া ট্রাভেল পারমিট বা অনুমতি নিয়েই ওমানে ফিরতে পারবেন। কেবলমাত্র এই দুটি এয়ারলাইন্সই বর্তমানে ট্রান্সফার যাত্রী বহন করতে পারে। ফেরার আগে যারা সবাইকে তারাসুদ প্লাস COVID মনিটরিং অ্যাপটিতে নিবন্ধন করতে হবে।”

এ ছাড়া নতুন গাইডলাইন অনুসারে, বিমানবন্দরের অভ্যন্তরে যাত্রীদের নিরাপত্তা চৌকিতে ভিড় এড়াতে কেবল একটি করে হ্যান্ডব্যাগ এবং একটি ডিউটি ​​ফ্রি ব্যাগ আনার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ভ্রমণের কমপক্ষে তিন এবং সর্বোচ্চ চার ঘন্টা আগে যাত্রীদের বিমানবন্দরে থাকতে হবে। আ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে তালিকাভুক্ত কোন কভিড বা করোনা লক্ষণ প্রদর্শন হয় এমন কোন যাত্রীকে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে না।

বিমানবন্দরের সব জায়গাতেই শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং মেঝের স্টিকার এবং দেওয়ালের চিহ্নগুলিতে দেওয়া নির্দেশাবলী অনুসরণ করতে হবে। এ ছাড়া বোডিং, ইমিগ্রেসনের সময় নথি আদান-প্রদানের পরে টয়লেট বা ওয়াশরুমে গিয়ে সাবান এবং পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নির্বীজন নিশ্চিত করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে ।
.
সকল ভ্রমণকারী বা যাত্রীকে বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পরে এবং বিমানের সময়কালের জন্য সঠিক উপায়ে মাস্ক পরতে হবে। বিশেষ প্রয়োজন বা রোগীদের এসকর্ট ছাড়া যারা বিমানবন্দরে যাত্রী নামাতে আসবেন এবং যাত্রীর সঙ্গী বা পরিবারের সদস্যদের টার্মিনাল ভবনের ভেতের প্রবেশের অনুমতি নেই।

বিদেশে ভ্রমণ করতে ইচ্ছুক ওমানিদের অবশ্যই স্বাস্থ্য বীমা থাকতে হবে যা কভিড -১৯ এর কভারেজ সরবরাহ করে এবং সমস্ত ভ্রমণকারীরা তাদের গন্তব্য দেশের নিয়ম অনুসরণ করতে হবে। তবে ওমানি এবং প্রবাসীরা ট্র্যাভেল পারমিট জারি না করেই দেশ ছাড়তে পারবেন।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।