ওমানে করােনা প্রতিরোধ বিধি অমান্যে কঠোর জরিমানা

0

ওমানে প্রকাশ্য স্থান বা জনসমক্ষে মাস্ক না পড়লে ২০ রিয়াল (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৪ হাজার ৪১৪ টাকা) জরিমানা গুনতে হবে। দেশটিতে করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার আরোপিত জরিমানার মধ্যে এটি অন্যতম।

এ ছাড়া করোনাভাইরাসের সন্দেহভাজনরা পরীক্ষা না করলে এবং আইসোলেশন (আলাদা থাকা) বিধিমালা মেনে না চলার জন্য ২০০ রিয়াল (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৪৪ হাজার ১৩৭ টাকা) জরিমানা দিতে হবে।

অনুমোদন ছাড়াই ঈদ জমায়েত, বিবাহ ও জানাজায় অংশ নিলে ১ হাজার ৫০০ রিয়াল (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩ লাখ ৩১ হাজার টাকা) জরিমানা করা হবে।

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কমিটির ই-সংবাদ সম্মেলনে পাবলিক প্রসিকিউটর নসর আল সাওয়াই জরিমানার এই প্যাকেজটি ঘোষণা করে। এসময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আহমেদ বিন মোহাম্মদ আল সাদী এবং পরিবহণমন্ত্রী ডা. আহমেদ বিন মোহাম্মদ আল ফুটাইসি উপস্থিত ছিলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, “ওমানের বাসিন্দাদের সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে সামাজিক দূরত্ব এবং অন্যান্য প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা কঠোরভাবে অনুসরণ করতে হবে। “আমরা সম্প্রতি ওমানিদের মধ্যে ক্রমবর্ধমান সংক্রমণের বিষয়টি লক্ষ্য করেছি কারণ তারা সামাজিক দূরত্বকে মেনে চলেন না। স্বাস্থ্য সংস্থাগুলিতে দেরি হওয়ার কারণে প্রবাসীদের মধ্যে আরও বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। ”

ড আল সাদী সুপ্রিম কমিটির নির্দেশনা মানার জন্য সকল নাগরিক এবং প্রবাসীদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, “আমরা সংক্রমণের উচ্চ মূল্য দিয়েছি, তবে ভাইরাসের বিস্তারকে সীমাবদ্ধ করার জন্য আমরা যদি প্রাথমিক ব্যবস্থা না করতাম তবে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতো। আমাদের সরকার নাগরিক এবং প্রবাসীদের স্বাস্থ্যের জন্য আগ্রহী এবং সুপ্রিম কমিটি পরিবর্তিতভাবে সকল ক্ষতিগ্রস্থ কার্যক্রম বিবেচনা করতে এবং ধীরে ধীরে সেগুলি পুনরায় চালু করতে আগ্রহী। করোনা পরিস্থিতি শেষ হয়নি। আমরা নির্দেশাবলী অনুসরণ করার জন্য আবারও আহবান জানাচ্ছি এবং আমাদের অবশ্যই প্রতিরোধের দিকে মনোনিবেশ করতে হবে। ”

মন্ত্রী ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে সকল ব্যক্তির ফ্লু ভ্যাকসিনের প্রয়োজন নেই। তিনি আশ্বাস দেন যে সুলতানাতে পর্যাপ্ত চিকিৎসা সরঞ্জাম এবং বেড রয়েছে, “তবে চ্যালেঞ্জটি হ’ল বিশেষায়িত মেডিকেল কর্মীদের অভাব।”

ঈদুল ফিতরের পরে কাজ আবার শুরু করার সম্ভাবনা সম্পর্কে প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ছুটির পরে সুপ্রিম কমিটি এই বিষয়টি এবং ধফারের খরিফ মওসুম নিয়ে আলোচনার জন্য বৈঠক করবে।

মন্ত্রী করোনাভাইরাস রোগীদের চিকিত্সার জন্য প্লাজমা দান করার আহ্বান জানান।

সংবাদ সম্মলনে রোগ নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণের মহাপরিচালক ডাঃ সাইফ আল আব্রি বলেছেন, বেশিরভাগ করোনাভাইরাস (সিওভিড -১৯) রোগীর হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হয় না। তাদের বাসা বা প্রাতিষ্ঠানিক পৃথকীকরণ প্রয়োজন।

তিনি বলেন, ভুক্তভোগীরা চিকিত্সা নিতে দেরি করায় এবং দীর্ঘস্থায়ী রোগে ভোগায় বেশিরভাগ মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছিল ।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

Loading...