লেবাননে হিজবুল্লাহ’র ঘাঁটিতে শক্তিশালী বিস্ফোরণ

0

লেবাননের দক্ষিণাঞ্চলে শিয়া সশস্ত্র গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ’র ঘাঁটিতে শক্তিশালী বিস্ফোরণের খবর পাওয়া গেছে। রাজধানী বৈরুত থেকে ৫০ কিলোমিটার দক্ষিণের আইন কানা গ্রামে বিস্ফোরণ ঘটে।

এতে বহু মানুষ হতাহত হয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হলেও নিরাপত্তা সূত্র এবং প্রত্যক্ষদর্শীরা চারজনের হতাহতের খবর নিশ্চিত করেছে। তবে হতাহতের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন হিজবুল্লাহর এক মুখপাত্র। তিনি প্রযুক্তিগত ত্রুটির জন্য বিস্ফোরণকেও দায়ী করেছেন। লেবাননের সেনাবাহিনী জানিয়েছে, তারা বিস্ফোরণের তদন্ত করছে।

আল জাজিরা জানাচ্ছে, বিস্ফোরণের পর সেখানে কালো ধোঁয়া উড়তে দেখা গেছে। শক্তিশালী বিস্ফোরণের কারণ এখনো জানা যায়নি। লেবাননের দক্ষিণাঞ্চল হিজবুল্লাহ’র শক্তশালী রাজনৈতিক ঘাঁটি রয়েছে। সতর্কতার জন্য এলাকাজুড়ে বিশেষ নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের উধ্ধৃতি দিয়ে ডেইলি স্টার জানাচ্ছে, ওই এলাকার অনেক ভবন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এবং বেশ কয়েকটি গাড়ি ধ্বংস হয়েছে। এলাকার বাসিন্দাদের অনেকে আতঙ্কিত হয়ে ধোঁয়ার বিপরীত দিকে দৌড়ে সরে আসে, আবার অনেকে দাঁড়িয়ে তা অবলোকন করে।

“পৃথিবী কাঁপল এবং তারপরে আমরা একটি জোরে বিস্ফোরণ শুনতে পেয়েছি। প্রথমে আমি ভেবেছিলাম এটি ইসরায়েলি অভিযান ছিল,” এলাকার বাসিন্দা উম্মে মাহমুদ মল্লা ডেইলি স্টারকে বলেছেন। “তবে আমরা বুঝতে পেরেছিলাম গ্রামের প্রান্তে একটি বাড়িতে বিস্ফোরণ ঘটেছে ।”

একটি নিরাপত্তা সূত্র ডেইলি স্টারকে জানিয়েছে যে, হিজবুল্লাহ ব্যবহৃত একটি বাড়িতে অস্ত্র ও গোলাবারুদ সংরক্ষণের জন্য এই বিস্ফোরণ হয়েছিল এবং সেখানে চার জন হতাহত হয়। রয়টার্সের বরাত করা একটি সূত্র জানিয়েছে, প্রযুক্তিগত ত্রুটির ফলে এই বিস্ফোরণ হয়েছিল।

হিজবুল্লাহর সদস্যরা বিস্ফোরণের ঘটনাস্থল ঘিরে ফেলে এবং সাংবাদিকদের কাছাকাছি আসতে বাধা দেয়।

হিজবুল্লাহ হল দক্ষিণ লেবাননের প্রভাবশালী রাজনৈতিক শক্তি এবং এটি একটি শক্তিশালী সামরিক বাহিনী বজায় রেখেছে যার কাছে ১০ লক্ষেরও বেশি রকেট রয়েছে।

এর আগে গত ৪ আগস্ট বৈরুত বন্দরের একটি রাসায়নিক গুদামে প্রথমে আগুন, এরপর ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। গুদামটিতে ২ হাজার ৭৫০ টন বিপজ্জনক রাসায়নিক অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট প্রায় ছয় বছর ধরে মজুত ছিল বলে জানা গেছে। শক্তিশালী ওই বিস্ফোরণে ধ্বংস হয়ে যায় গোটা শহরের অর্ধেক। এতে প্রাণ হারান প্রায় ২০০ মানুষ, আহত হন অন্তত সাড়ে ছয় হাজার। বিস্ফোরণে মোট ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কয়েক বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।