রোহিঙ্গা গণহত্যা: আরও সেনার বিচার করবে মিয়ানমার

0

শুক্রবার মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এক বিবৃতিতে বলেছে যে, রোহিঙ্গা মুসলমানদের নিপীড়নের অভিযোগে আরো আরো সেনাকে সামরিক আদালতে বিচার (কোর্ট মার্শাল) করা হবে।

‘সেনারা সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ করেছে’ মিয়ানমার সরকারের নিয়োগপ্রাপ্ত কমিশনের তদন্তে এমন পর্যবেক্ষণ আসার পর সেনাবাগিনী এই ঘোষণা দিয়েছে।

জানুয়ারিতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে প্যানেলে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছিল যে, ২০১৭ সালে ওই গ্রুপটির বিরুদ্ধে (রোহিঙ্গা) সামরিক নেতৃত্বাধীন নিরাপত্তা বাহিনীর কঠোর অভিযানের সময় বাহিনীর মধ্যে “একাধিক ক্রীড়ানক” যুদ্ধাপরাধ এবং গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য দায়ী ছিল।

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গাম্বিয়া গত বছর হেগে আন্তর্জাতিক আদালতে গণহত্যার অভিযোগে মামলা দায়ের করার পরে মিয়ানমারকেবিচারের মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

শুক্রবার মিয়ানমার সেনাবাহিনী তার ওয়েবসাইটে একটি পোস্টে বলেছে যে, তারা কমিশনের প্রতিবেদনটি বিশদভাবে অধ্যয়ন করেছে এবং অভিযোগগুলি পর্যালোচনা করছে।

২০১৭ সালের আগস্টে শুরু হওয়া সেনা আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে সেখানকার প্রায় সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সমুদ্র পেরিয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশ আশ্রয় নেয়। গণহত্যার অভিপ্রায় নিয়েই ওই অভিযান চলেছে বলে বর্ণনা করে জাতিসংঘ তদন্তকারীরা।

মিয়ানমারের দাবি, সেনাবাহিনী সুরক্ষা পোস্টগুলিতে আক্রমণকারী জঙ্গিদের বিরুদ্ধে বৈধ বিদ্রোহ-বিরোধী অভিযানের লড়াই করেছে।

সেনাবাহিনী বলেছে, দুটো গ্রামে সেনাদের কথিত যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ তদন্ত করা হচ্ছে। একটি হচ্ছে মং নু গ্রাম, যেখানে বাসিন্দারা কমিশন প্যানেলটিকে জানিয়েছিলেন যে একটি বাড়িতে একসাথে আশ্রয় নেওয়ার পরে ২০০ জন মুসলমানকে হত্যা করা হয়েছিল

আরেকটি হচ্ছে ‍চুত পাইন গ্রাম যেখানে আরো ডজন খানেক মানুষ হত্যার অভিযোগ রয়েছে।

বিবৃতিতে সেনাবাহিনী বলেছে,“ দ্য কোর্ট অব ইনকোয়ারি এ ঘটনাগুলো তদন্ত করবে এবং আইনানুগভাবে সামরিক ন্যায়বিচার অনুযায়ী কোর্ট মার্শাল করা হবে।”

মং নু বাসিন্দারা সরকারের নিয়োগপ্রাপ্ত তদন্তকারীদের জানিয়েছেন যে, জঙ্গিরা কাছাকাছি একটি সুরক্ষা পোস্টে হামলা করে এবং এমন একটি বাড়িতে হামলা চালিয়েছিল যেখানে বহু গ্রামবাসী আশ্রয় নিচ্ছিল এবং ২০০ জনকে হত্যা করেছিল।

চুত পাইন বাসিন্দারা জানিয়েছেন, সৈন্যরা গ্রামটিকে ঘিরে রেখে, রকেট লঞ্চ ব্যবহার করে বাড়িতে আগুন লাগিয়েছিল এবং নির্বিচারে গুলি চালায়, বেশ কয়েকজনকে হত্যা করেছিল, জানুয়ারির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

সৈন্যরা যারা এই ধ্বংসে অংশ নিয়েছে বলে থানীয়রা অভিযোগ করে, তারা পরে “পরিকল্পিতভাবে মরদেহগুলি ধ্বংস করে দিয়েছ”, একজন বৌদ্ধ বাসিন্দা সরকার সমর্থিত প্যানেলকে জানিয়েছিলেন।

“ ‍চুত পাইন গ্রামে অনেক মরদেহ ছিল যে সেগুলি পুড়িয়ে ফেলা হলেও, সবগুলো পুড়ে ছাই হয়ে যায় না; কিছুকে দাফন করা হয়েছিল এবং কিছু মরদেহ বন্য প্রাণীদের দ্বারা টেনে তোলা হয়েছে, ”বাসিন্দার বরাত দিয়ে বলা হয়েছে।

সেনাবাহিনী তার বিবৃতিতে বলেছে যে, তারা এখনও সরকার দ্বারা নির্ধারিত প্যানেলের রিপোর্টে উল্লিখিত অন্যান্য ঘটনার পর্যালোচনা করছে, যার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রোহিঙ্গা জঙ্গিরা নিজেকে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি বলে আখ্যায়িত, যে দলটি অস্বীকার করে হিন্দুদের হত্যাযজ্ঞের।

মিয়ানমার নিজস্ব তদন্ত চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, বলেছে যে আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার ব্যবস্থাগুলি তার সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন করে।

সেনাবাহিনী নভেম্বরে গু দার পাইন গ্রামে মোতায়েন করা একটি রেজিমেন্ট থেকে সৈন্য ও অফিসারদের একটি বিচার শুরু করেছিল, এটি আরও একটি কথিত গণহত্যার স্থান।

শুক্রবার সামরিক বাহিনী জানিয়েছে যে এই বিচার সংক্রান্ত একটি বিবৃতি “অদূর ভবিষ্যতে” প্রকাশ করা হবে।

ইন দিন গ্রামে ১০ জন রোহিঙ্গা পুরুষ ও ছেলেদের হত্যার দায়ে ১০ বছরের জন্য জেল হওয়া সাত সৈন্যকে এক বছরেরও কম সময় কারাগারে থাকার পরে গত বছরের নভেম্বরের প্রথম দিকে মুক্তি দেওয়া হয় ।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

Loading...