যুক্তরাষ্ট্রে ‘প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ অর্জন করলেন বাংলাদেশি শাহ হালিম

0

টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের প্রবাসী বাংলাদেশি সংগঠক, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব হিউস্টনের (বিএএইচ) সাবেক চেয়ারম্যান শাহ এম. হালিম (Shah M Haleem) এ বছর যুক্তরাষ্ট্রের ‘প্রেসিডেন্টস লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড” (রাষ্ট্রপতির আজীবন সম্মাননা পুরস্কার) অর্জন করেছেন।

কমিউনিটির সেবায় অসামান্য অবদান, নেতৃত্বের শ্রেষ্ঠত্ব এবং একটি শক্তিশালী জাতি গঠনে আজীবনের অঙ্গীকারের জন্য শাহ হালিমকে এই স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য নির্বাচিত করে পুরষ্কার কমিটি।

গত সপ্তাহে হিউস্টন অনুষ্ঠিত বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে তার হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, হিউস্টনের গণ্যমান্য ব্যক্তি ও কমিউনিটি সংগঠনের নেতারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

পুরস্কারের কিটে রয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের স্বাক্ষরিত সনদপত্র, ক্রেস্ট, প্রেসিডেন্টের সিলসহ স্মারক মুদ্রা, কোট পিন, শ্যাম্পেইন গ্লাস ও ব্যাজ এবং প্রেসিডেন্টের হোয়াইট হাউসের কলম ।

বিএএইচ জানায়, শাহ হালিম ২৫ বছর ধরে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব হিউস্টনের মাধ্যমে কমিউনিটির কল্যাণ ও সামাজিক উন্নয়নে জোরালো ভূমিকা ও অবদান রেখেছেন। তিনি ছয় বছর বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারপারসন ছিলেন এবং বাংলাদেশ-আমেরিকা সেন্টার স্থাপনে গড়ে তুলতে অক্লান্ত পরিশ্রম ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন।

পুরস্কারের কিটে রয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের স্বাক্ষরিত সনদপত্র, ক্রেস্ট, প্রেসিডেন্টের সিলসহ স্মারক মুদ্রা, কোট পিন, শ্যাম্পেইন গ্লাস ও ব্যাজ এবং প্রেসিডেন্টের হোয়াইট হাউসের কলম। ছবি : সংগৃহীত
পুরস্কারের কিটে রয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের স্বাক্ষরিত সনদপত্র, ক্রেস্ট, প্রেসিডেন্টের সিলসহ স্মারক মুদ্রা, কোট পিন, শ্যাম্পেইন গ্লাস ও ব্যাজ এবং প্রেসিডেন্টের হোয়াইট হাউসের কলম। ছবি : সংগৃহীত

এছাড়াও তিনি স্থানীয় মূলধারার সংগঠনসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে অলাভজনক কাজে জড়িত রয়েছেন। এইসব সংগঠনের মাধ্যমে সমাজ উন্নয়ন, মানবাধিকার, সামাজিক ন্যায্যতা ইত্যাদি বিষয়ে ভূমিকা রেখেছেন। পাশাপাশি তিনি বছরের পর বছর হিউস্টন ফুড ব্যাঙ্কে অবদান রেখেছেন। হারিকেন হার্ভির সময় ৫০ জনের বেশি স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃত্ব দিয়ে ‘হার্ভে হিরো’ হিসেবে শত শত পরিবারকে সাহায্য করেন।

শাহ হালিম বিগত ১৫ বছর ধরে ফেডারেশন অফ বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েশন ইন নর্থ আমেরিকা (ফোবানা)-এর উদ্ভবের একজন নেতা ছিলেন। গত বছর করোনাকালীন সংকটের সময় ফোবানা চেয়ারপারসন হিসাবে তিনি উত্তর আমেরিকা এবং বাংলাদেশের অসহায় মানুষদের সাহায্য করার জন্য তহবিল সংগ্রহের জন্য পুরো যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে সংগঠনের নেতৃত্ব দেন।

অনুভূতি জানাতে গিয়ে শাহ হালিম বলেন, আমি মনে করি এই স্বীকৃতি অর্জন শুধু আমার একার নয়, পুরো বাংলাদেশি কমিউনিটির। আমরা কতটা মানবিক ও সামাজিক এই অর্জনেই সেই বার্তা দেয়। অন্যদের সেবা করার জন্য আমাদের যাত্রা বাকি জীবনও অব্যাহত থাকবে।

 হিউস্টন অনুষ্ঠিত বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি সংগঠক শাহ এম. হালিমের হাতে যুক্তরাষ্ট্রের 'প্রেসিডেন্ট'স লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড' তুলে দেওয়া হয়। ছবি: সংগৃহীত
হিউস্টন অনুষ্ঠিত বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি সংগঠক শাহ এম. হালিমের হাতে যুক্তরাষ্ট্রের ‘প্রেসিডেন্ট’স লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ তুলে দেওয়া হয়। ছবি: সংগৃহীত

তিনি আরও বলেন, এই স্বীকৃতির জন্য আমি সকল স্বেচ্ছাসেবক বন্ধু এবং সংগঠনের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই, যারা আমার সাথে সারাজীবন কাজ করেছে। এমন সম্মাননার জন্য নির্বাচিত করায় পুরস্কার কমিটিকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটিকে যারা সবসময় আমার পাশে আছেন।

বাংলাদেশের গোপালগঞ্জের অধিবাসী শাহ হালিম ব্যক্তিগতভাবে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলেন এবং পরে স্থায়ী হন। তার পিতা প্রয়াত শাহ আব্দুল হালিম ছিলেন একজন সমাজকর্মী এবং পোশাক রপ্তানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ-এর সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট।

হালিমের পরিবার ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে এবং তার পূর্বপুরুষদের অনেকেই সরকারি পর্যায়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত থেকে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছেন।

শাহ হালিমের ‘প্রেসিডেন্ট লাইফটাইম অ্যাওয়ার্ড’ অর্জনে বেশ আনন্দিত প্রবাসী বাংলাদেশিরা। তাকে শুভেচ্ছো ও অভিনন্দন জানিয়েছে কমিউনিটি সংগঠনগুলো ।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন