যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম বাংলাদেশি মালিকানাধীন বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা

0

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম বাংলাদেশি মালিকানাধীন একটি বিশ্ববিদ্যালয় যাত্রা শুরু করেছে। ভার্জিনিয়ায় “ইনোভেটিভ গ্লোবাল ইউনিভার্সিটি” নামের এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন দেশটিতে সফররত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

ওয়াশিংটন ডিসি সংলগ্ন ভার্জিনিয়ায় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন প্রকৌশলী আবুবকর হানিপের মালিকানাধীন ‘ইনোভেটিভ গ্লোবাল ইউনিভার্সিটি’র উদ্বোধন অনুষ্ঠানটিও পরিণত হয়েছিন বাঙারীদের মিলনমেলায়।

যুক্তরাষ্ট্রের এই বিশ্ববিদ্যালয় চালুর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর ইতিহাসে আরেকটি অধ্যায়ের সংযোজন ঘটলো উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে এ মোমেন বলেন, বহুজাতিক এ সমাজে কেবল প্রবাসীদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথেই নয়; বাংলাদেশের মেধাবিদের দক্ষ হিসেবে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে এই প্রতিষ্ঠান ভূমিকা রাখবে বলে নিজের আশার কথাও জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, যত বেশি সংখ্যক বাংলাদেশি বিদেশে উচ্চ বেতনে চাকরি পাবে, তত বেশি অর্থ যাবে বাংলাদেশে। আর বাংলাদেশিদের স্বপ্ন সারথি হোক এই বিশ্ববিদ্যালয়।

বিশ্ববিদ্যালয়টির মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম শহীদুল ইসলাম, সামিট গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান ফরিদ খান, ভয়েস অব আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দার। এছাড়া বাংলাদেশি কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক, পরিচালক, শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য ড. সাজ্জাদ হোসেন, জর্জিয়া স্টেট সিনেটর শেখ রহমান এবং সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার উপদেষ্টা ড. নীনা আহমেদ ভিডিও বার্তায় শুভেচ্ছা জানান ।

স্বাগত বক্তব্যে ওই ইউনিভার্সিটির উদ্যোক্তা প্রকৌশলী আবুবকর হানিপ বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি, কারিগরি শিক্ষাও দেয়া হবে প্রতিটি শিক্ষার্থীকে। যেন গ্র্যাজুয়েশন শেষ করার সাথে সাথেই সবাই চাকরি পেয়ে যান।

যুক্তরাষ্ট্রে অসংখ্য শিক্ষার্থী ব্যাচেলর এবং মাস্টার্স সম্পন্ন করেও মাসের পর মাস চাকরি পান না উল্লেখ করে তিনি বলেন, অনেক দপ্তরেই পূর্ব অভিজ্ঞতা লাগে। অভিজ্ঞতা না থাকলে আইটি সেক্টরে কখনোই চাকরি পাওয়া যায় না। এই ইউনিভার্সিটিতে সে ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে।

তিনি জানান, এই ইউনিভার্সিটিতে তথ্য-প্রযুক্তি, ব্যবসা-প্রশাসন, প্রজেক্ট এবং হেলথ কেয়ার পড়ানো হয়। ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ইউনিভার্সিটির মালিকানা বদল হয়ে এসেছে, তাদের হাতে। এখানে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা যেন অবাধে ভর্তির সুযোগ পান সে চেষ্টা থাকবে বলেও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনের নামে দুটি স্কলারশিপ ঘোষণা দেয়া হয়। বাংলাদেশ থেকে আসা ছাত্র-ছাত্রীর মধ্য থেকে এই স্কলারশিপ একটি ব্যাচেলর এবং আরেকটি মাস্টার্স কোর্সের জন্য পাবেন। এর বাইরেও প্রায় দুই লাখ ডলারের শিক্ষাবৃত্তি দেয়া হবে বাংলাদেশ থেকে আসা শিক্ষার্থীদেরকে।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন