মালয়েশিয়ায় ঝুলন্ত সংসদ

0

মালয়েশিয়ার সাধারণ নির্বাচনে কোনো দল বা জোটই সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় আসন নিশ্চিত করতে পারেনি। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এ নির্বাচনের ফল শেষ পর্যন্ত ঝুলন্ত পার্লামেন্টে গিয়ে ঠেকেছে। এমন অবস্থায় অন্য দলগুলোর সমর্থন নিয়ে সরকার গঠনের চেষ্টায় শীর্ষ জোটগুলো আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। খবর আল–জাজিরার।

গতকাল শনিবার মালয়েশিয়ার সাধারণ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। আজ রোববার ভোরে মালয়েশিয়ার নির্বাচন কমিশন বলেছে, ২২২ সদস্যবিশিষ্ট পার্লামেন্টে আনোয়ার ইব্রাহিমের দল পাকাতান হারাপান (পিএইচ) জোট ৮২টি আসনে জয় নিশ্চিত করেছে।

মালয়েশিয়া প্রবাসের সব খবর জানতে, এখানে ক্লিক করে আকাশযাত্রার ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকার অনুরোধ

Travelion – Mobile

আর সাবেক প্রধানমন্ত্রী মুহিউদ্দিন ইয়াসিনের মালেভিত্তিক দল পেরিকাতান ন্যাসিনাল (পিএন) ৭৩টি আসনে জয় পেয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে। সারাওয়াক রাজ্যের বোর্নিওতে বন্যার কারণে একটি আসনে ভোট স্থগিত করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী ইসমাইল সাবরি ইয়াকুবের দল ইউনাইটেড মালয়জ ন্যাশনাল অর্গানাইজেশনের (ইউএমএনও) নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন জোট বারিসান ন্যাসিওনাল (বিএন) নির্বাচনে বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে।

জোটটি মাত্র ৩০টি আসনে জয় পেয়েছে। সরকার গঠনের জন্য সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিশ্চিত করতে ২২২টি আসনের মধ্যে ১১২টিতে জয় নিশ্চিত করতে হবে। সে সংখ্যাগরিষ্ঠতা কোনো দল বা জোটই অর্জন করতে পারেনি।

সরকার গঠনের জন্য এখন জোটগুলোকে অন্য দলের সমর্থন জোগাড় করতে হবে। তবে আনোয়ার ইব্রাহিম ও মুহিউদ্দিন ইয়াসিন দুজনই দাবি করেন সরকার গঠন করার মতো যথেষ্ট সমর্থন তাঁদের জোটের পক্ষে আছে। তবে কোন কোন দল তাঁদের জোটে যোগ দিচ্ছে, তা স্পষ্ট করে বলেননি তাঁরা। আজ জোট গঠন নিয়ে আলোচনা চলছে।

এদিকে মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী ৯৭ বছর বয়সী মাহাথির মোহাম্মদ গতকালের নির্বাচনে নিজের আসনে হেরে গেছেন। এ পরাজয়কে তাঁর সাত দশকের রাজনৈতিক জীবনের ইতি হিসেবে দেখা হচ্ছে।

মালয়েশিয়া প্রবাসের সব খবর জানতে, এখানে ক্লিক করে আকাশযাত্রার ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকার অনুরোধ

গত কয়েক বছরের মধ্যে তিনজন প্রধানমন্ত্রী পেয়েছে মালয়েশিয়া। সম্প্রতি দেশটিতে ‘স্থিতিশীলতা’ ফেরানোর চেষ্টার অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী ইসমাইল সাবরি ইয়াকুব আগাম নির্বাচনের ডাক দেন। সাবরি ইয়াকুব ও মুহিউদ্দিনের জোট ক্ষমতাসীন জোট সরকারেরই অংশ। কিন্তু নির্বাচনে তাঁরা আলাদাভাবে লড়েছেন।

al sohar – mobile

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন