ফ্লাই দুবাই ক্ষতিপূরণ দিচ্ছে ফিরে আসা ১০৪ বাংলাদেশিকে

0

করোনাকালে ফিরে যাওয়ার পলিসি অনুসরণ না করায় বিমানবন্দর থেকে ফ্লাই দুবাইতে যাাওয়া ১০৪ প্রবাসী বাংলাদেশিকে দেশে ফেরত পাঠায় দুবাই ইমিগ্রেশন পুলিশ। মূলত বিমানসংস্থাটির গাফিলতির কারণে ফিরত হয়েছে দ তাদের। আর এ জন্য ওই প্রবাসী বাংলাদেশিদের ক্ষতিপূরণ দিচ্ছে ফ্লাই দুবাই। সবার টিকিটের টাকা ফেরতসহ আনুষঙ্গিক খরচ বাবদ অতিরিক্ত ৩৫০০ টাকা দেবে বিমানসংস্থাটি।

রোববার (১১ অক্টোবর) ফ্লাই দুবাইকে এই ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য করেন হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ম্যাজিস্ট্রেট শেখ হাফিজুর রহমান।

ঘটনার বিষয়ে শাহজালাল বিমানবন্দর সূত্র জানায়, গত ৯ অক্টোবর ফ্লাই দুবাইয়ের দুটি ফ্লাইটযোগে ঢাকা থেকে ৫১ জন এবং চট্টগ্রাম থেকে ৫৩ জন যাত্রী দুবাই যায়। তবে তাদেরকে রোববার (১১ অক্টোবর) দুবাই বিমানবন্দর থেকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়।

জানা গেছে, আইসিএ অ্যাপ্রুভাল জটিলতায় দেশটির অভ্যন্তরে প্রবেশের অনুমতি মেলেনি তাদের। করোনাকালীন সময়ে বিমান যাত্রীদের জন্য আমিরাত সরকারের বেঁধে দেওয়া নিয়মের শতভাগ পূরণ না হওয়ায় তাদের বিমানবন্দরে আটকে দেওয়া হয়। শনিবার সারাদিন বিমানবন্দরে অবস্থানের পর রোববার সকালে তারা দেশে ফিরে আসেন।

তবে শতাধিক যাত্রী ও এয়ারলাইন্সের সাথে কথা বলে ম্যাজিস্ট্রেট শেখ হাফিজুর রহমান নিশ্চিত হন, ফেরত আসার জন্য ফ্লাই দুবাইয়ের গাফিলতি দায়ী। সংযুক্ত আরব আমিরাতের ইমিগ্রেশন পলিসি অনুসরণ করলে এ যাত্রীদের দুবাইগামী ফ্লাইটে বোর্ডিং করানোর কোনো সুযোগ নেই। তবে ফ্লাই দুবাই তাই করেছে।

রোববার ভোগান্তির শিকার যাত্রীদের উপস্থিতিতে শুনানির পর ফ্লাই দুবাই কর্তৃপক্ষ ফেরত আসা মোট ১০৪ জন যাত্রীর প্রত্যেককে আগামী ১৮ অক্টোবরের মধ্যে ক্ষতিপূরণ বাবদ টিকিটের ক্রয়মূল্য এবং অন্যান্য খরচ বাবদ আরও ৩৫০০ টাকা করে প্রদানের লিখিত অঙ্গীকার করেন।

গত ৮ অক্টোবর ফ্লাইট থাকলেও একদিন দেরি করে ৯ অক্টোবর ঢাকা ছাড়ে ফ্লাই দুবাই। দুবাই বিমানবন্দরে পৌঁছার পর অনুমতিপত্র না থাকায় পুলিশ তাদেরকে আটক করে। দুই দিন পর দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হয়। এই প্রবাসীরা ৭৪ ঘণ্টা দুবাই বিমানবন্দরে অবস্থান করেন। এ সময় তাদেরকে খাবারও দেয়া হয়নি।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।