পাইলটকে পেটানোর হুমকি দিয়ে বিমানযাত্রী অফলোড!

0

তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে বিমানযাত্রী কো-পাইলটকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘১৭ বার জেল খেটেছি, তোকে পিটিয়ে না হয় আমি আরেকবার জেলে যামু। তোদের এমডিকে আমি চিনি, কিছুক্ষণ আগে ফোন করেছি।’ হতবিহবল কো-পাইলট সালেক যাত্রীর আচরণের পুরো ঘটনাটি জানিয়ে ক্যাপ্টেন মাকসুদের কাছে রিপোর্ট করেন।

তখন ক্যাপ্টেন ওই যাত্রীকে উড়োজাহাজ থেকে অফলোড করে ফ্লাইট নিয়ে ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশে সৌদি আরবের পণ্যভূমি মদিনা ত্যাগ করেন। রাত ৩টায় ফ্লাইটটি ঢাকায় অবতরণ করে।

এ ঘটনা গত ২০ জানুয়ারির। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মদিনা থেকে ঢাকাগামী ফ্লাইটে।

সৌদি আরবের মদিনার প্রিন্স মোহাম্মদ বিন আব্দুল আজিজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ঢাকাগামী একটি ফ্লাইটে কো-পাইলটের সাথে যাত্রীর অসৌজন্যমূলক আচরণ ও হুমকি দেয়ার জের ধরে একপর্যায়ে যাত্রীকে উড়োজাহাজ থেকে অফলোড করেন ক্যাপ্টেন। বিমানবন্দরের নিরাপত্তা কর্মিরা ক্যাপ্টেনের বার্তা পেয়ে ঔ যাত্রীকে ঢাকাগামী ফ্লাইট নামিয়ে নিয়ে যান।

প্রত্যক্ষদর্শী বিমানযাত্রীদের সূত্রে জানা গেছে, ২০ জানুয়ারি (সোমবার) বাংলাদেশ সময় রাত সোয়া ১০ টার দিকে বিমান বাংলাদেশ এযারলাইন্সের (বোয়িং-৭৭৭-৩০০) ফ্লাইটটি মদিনা থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসার কথা। কিন্তু ফ্লাইটটি নির্ধারিত সময়ের সোয়া এক ঘণ্টা পর রাত ১১ টায় ৩৪০ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসে।

নির্ধারিত সময়ে ফ্লাইট ছেড়ে আসার আগেই হোল্ডিং লাউঞ্জে অন্য যাত্রীদের সাথে উড়োজাহাজে উঠার অপেক্ষা করছিলেন যশোরের বাসিন্দা টুকুন জাহিদ হোসেন নামে একজন যাত্রী। এ সময় সেখান দিয়ে উড়োজাহাজে উঠার জন্য যাচ্ছিলেন বিমানের পাইলট ক্যাপ্টেন মাকসুদ ও ফাস্ট অফিসার সালেক। তখন যাত্রী টুকুন ফাস্ট অফিসারের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, বিমানের ফ্লাইটটি কি নির্ধারিত সময়ে ছাড়বে?

জবাবে কো পাইলট সালেক তাকে বলেছিলেন, ‘এটি গ্রাউন্ড অফিসার যারা তারা বলতে পারবেন। এ কথা বলে তিনি চলে যান। এরপর কিছুক্ষণ পর যাত্রীদের উড়োজাহাজে উঠার আমন্ত্রণ জানানো হয়। বিমানে উঠার পর আবারো ওই যাত্রীর সাথে কো-পাইলটের দেখা হয়। তখন আবারো তাদের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। এক পর্যায়ে যাত্রী টুকুন জাহিদ হোসেন কো-পাইলটকে দেখে নেয়ার হুমকি দেন এবং অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন।

তখন ক্যাপ্টেন ওই যাত্রীকে উড়োজাহাজ থেকে অফলোড করার নির্দেশ দেন এবং তাকে অফলোডের কারণ উল্লেখ করে পাইলট হ্যান্ডনোট স্টেশন ম্যানেজার মাহাবুবের কাছে দিয়ে ফ্লাইট নিয়ে ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশে মদিনা ত্যাগ করেন। সোমবার রাত ৩ টায় ফ্লাইটটি ঢাকায় অবতরণ করে।

ওই ফ্লাইটের একজন যাত্রী বলেন,পরবর্তীতে ওই যাত্রীকে ঢাকায় নিয়ে আসার জন্য বিমানের একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পাইলটদের অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু পাইলট তাদের অনুরোধ রাখতে অগারগতা প্রকাশ করেন।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

Loading...