পর্তুগাল ও সুইডেনেও স্থগিত হল অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা

0

ভ্যাকসিন নেওয়া কয়েকজন রোগীর শরীরে রক্ত ​​জমাট বাঁধার রিপোর্টের মধ্যে পর্তুগাল গতরাতে অ্যাস্ট্রাজেনেকা করোনা-১৯ টিকার ব্যবহার বা প্রয়োগ অস্থায়ীভাবে স্থগিত করেছে।

দেশটির স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পর্তুগালের এ পর্যন্ত প্রায় ১ লাখ ৭০ হাজার মানুষ এই টিকা নিয়েছে।

ভ্যাকসিনেশন টাস্কফোর্স পূর্বে ঘোষণা করেছিল যে, আসন্ন সপ্তাহান্তে ৮০,০০০ শিক্ষক এবং স্কুল কর্মীকে এই টিকা দেওয়া হবে, তবে অ্যাস্ট্রাজেনেকা স্থগিতের কারণে এটি এখন পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। পর্তুগালে উচ্চ-ঝুঁকিপূর্ণ গোষ্ঠীগুলিকে টিকা দেওয়ার সময়সূচী ঠিক আছে।

সুইডেনের জনস্বাস্থ্য সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে। সংস্থার ওয়েবসাইটে দেয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে “সিদ্ধান্তটি একটি সতর্কতামূলক পদক্ষেপ”। ইউরোপিয়ান মেডিসিনস এজেন্সি সাম্প্রতিক ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলো এই টিকাদানের সঙ্গে সম্পর্কিত কিনা তা তদন্ত না করা পর্যন্ত আমাদের সাময়িক বিরত থাকা জরুরি”।

অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই টিকাটি জার্মানি, ফ্রান্স ও ইতালিসহ ইউরোপের অন্তত ১৫টি দেশ ইতোমধ্যে স্থগিত করেছে। অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি কোভিড-১৯ প্রতিরোধক টিকা দেওয়ার পরে অল্প সংখ্যক ব্যক্তির দেহে রক্তে জমাট বাঁধার বিষয়টি সনাক্ত হওয়ার পরে ১৫ মার্চ জার্মানির স্বাস্থ্য সংস্থা র এবং এটাকে একটি সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে অভিহিত করে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও) আতঙ্কিত না হয়ে সব দেশকে টিকা দেওয়ার কর্মসূচী চালিয়ে যেতে বলেছে। ডাব্লিউএইচওর প্রধান গবেষক সৌম্য স্বামীনাথন বলেন, কোনো টিকাকে শতভাগ নিরাপদ হিসাবে বিবেচনা করা যায় না। লক্ষ লক্ষ মানুষকে টিকা দেওয়া হলে এর মধ্যে কিছু সংখ্যক ঘটনা ঘটতেই পারে। আমরা এই কেসগুলিকে গভীর পর্যবেক্ষনে রেখে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছি। তবে আমরা চাই না মানুষ আতঙ্কিত হোক। অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেওয়া চালিয়ে যেতে তিনি পরামর্শ দেন।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন