পর্তুগালে বঙ্গমাতা ও শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী উদযাপন

0

মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের সহধর্মিণী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা মুজিবের ৯০ তম এবং জৈষ্ঠ্য পুত্র শেখ কামালের ৭১ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে পর্তুগালে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে স্মরণ সভা এবং দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয় ।

শনিবার (৮ আগষ্ট) বিকেলে লিসবনে বাংলাদেশ দূতাবাসের হল রুমে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হয় স্মরণ সভা। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি দিয়ে জানান পর্তুগালে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্টদূত রুহুল আলম সিদ্দীকি এবং পর্তুগাল আওয়ামীলিগ নেতৃবৃন্দ।

দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব আব্দুল্লাহ আল রাজীবের সঞ্চালনায় এবং রাষ্ট্রদূত রুহুল আলম সিদ্দীকির সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন পর্তুগাল আওয়ালীগের সভাপতি জহিরুল আলম জসিম, যুগ্ম সাধারণ ইমরান হোসেন ভুঁইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, রেজাউল বাসিত, আওয়ামীলীগ নেতা তানভীর আলম জনি, এডভোকেট হাবিবুর রহমান, জামাল উদ্দিন, নারীনেত্রী সানজিদা মনা, কাওসার আহমেদ,আব্দুল্লাহ আল মামুন,ছাত্রলীগ নেতা রিয়াদ।

রাষ্টদূত রুহুল আলম সিদ্দীকি বলেন, “৭ মার্চের ভাষণের ঠিক আগে বঙ্গমাতা বঙ্গবন্ধুকে তিনি যা জাতির জন্য মঙ্গলজনক বলে বিশ্বাস করেন, তাই বলার জন্য পরামর্শ দিয়েছিলেন এবং সে অনুসারে বঙ্গবন্ধু তার হৃদয় থেকে সেই অমোঘ বাণী উচ্চারণ করেছিলেন- ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’।

“বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব অনুপ্রেরণা, ধৈর্য এবং ভালবাসার প্রতীক। তিনি বঙ্গবন্ধুকে দৃঢ়ভাবে পরাধীনতা থেকে জাতিকে মুক্ত করার সংগ্রামে সাহস যুগিয়েছিলেন”- তিনি যোগ করেন।

শেখ কামালের সাংস্কৃতিক সৃজনশীলতা এবং ক্রীড়াক্ষেত্রে তার গুরুত্বপূর্ণ অবদানের কথাও তুলে ধরে রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘উত্তরাধিকার সূত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মানবিক ও নেতৃত্বসুলভ সকল গুণাবলি অর্জন করেন শেখ কামাল। শেখ কামালের লক্ষ্য ছিল শিক্ষা, ক্রীড়া ও সংস্কৃতিতে আধুনিকতর এক বাংলাদেশ গড়ার। মাত্র ২৬ বছরের সংক্ষিপ্ত জীবনে শেখ কামাল ক্রীড়া, শিক্ষা, সংস্কৃতি, রাজনীতিসহ সকল ক্ষেত্রে যেসব অসামান্য কর্ম দিয়ে দেখিয়েছেন, তা এদেশের তরুণ প্রজন্মের জন্য অনুকরণীয়।’

রাষ্ট্রদূত শেখ কামালের জীবনাদর্শকে বাংলাদেশের তরুণদের জীবনে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজে লাগানোর আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেসা মুজিব এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ কামালের উপর তৈরি দুটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

কোরিয়ার উন্নত কৃষি প্রযুক্তি : বাংলাদেশে প্রয়োগ সম্ভাবনা (পর্ব ১)

কোরিয়ার উন্নত কৃষি প্রযুক্তি : বাংলাদেশে প্রয়োগ সম্ভাবনা (পর্ব ১)৮ আগস্ট, শনিবার – দক্ষিণ কোরিয়া : রাত ৯ টা __ বাংলাদেশ সময় : সন্ধ্যা ৬ টা সঞ্চালনায় : ড. পিকে রায়, পোস্ট-ডক্টরাল রিসার্চার, চুং আঙ ইউনিভার্সিটি, দক্ষিণ কোরিয়াঅতিথি আলোচকড. মো. জামাল উদ্দিন হাসান, রিসার্চ প্রফেসর, ইওহা ওমেনস ইউনিভার্সিটি, দক্ষিণ কোরিয়াড. নারায়ণ চন্দ্র পাল, কৃষি ও জৈব প্রযুক্তি গবেষক, পল্লী উন্নয়ন একাডেমি, দক্ষিণ কোরিয়াড. মো. কামরুজ্জামান মিলন, সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটড. মো. আখতারুজ্জামান, পোস্ট-ডক্টরাল রিসার্চার, পল্লী উন্নয়ন একাডেমি, দক্ষিণ কোরিয়াসমন্বয় : ওমর ফারুক হিমেল

Posted by AkashJatra on Saturday, August 8, 2020

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।