প্রসবব্যথা নিয়েই সাইকেল চালিয়ে হাসপাতালে গেলেন এমপি

0

‘বড় ঘটনা! দিবাগত রাত ৩টা ৪ মিনিটের দিকে আমাদের পরিবারে নতুন সদস্য এসেছে। প্রসববেদনা নিয়ে সাইকেল চালানোর পরিকল্পনা আমার ছিল না। তবে শেষ পর্যন্ত তেমনটাই ঘটেছে।’

সন্তান জন্মদানের কয়েক ঘণ্টা পরই ফেসবুক পেজে দেওয়া পোস্টে এমনটাই লেখেন, নিউজিল্যান্ডের গ্রিন পার্টির নেতা ও পার্লামেন্ট সদস্য জুলি অ্যান জেন্টার।

সন্তান জন্ম দিতে হাসপাতালে ভর্তির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন জেন্টার। শনিবার রাতে শরীর খানিকটা খারাপ বোধ করায় সাইকেল চালিয়ে হাসপাতালে রওনা করেন তিনি। পথেই তাঁর প্রসবযন্ত্রণা শুরু হয়ে যায়। ওভাবেই সাইকেল চালিয়ে হাসপাতালে পৌঁছান জেন্টার। সেখানে এক ফুটফুটে কন্যাসন্তানের জন্ম দেন।

নিউজিল্যান্ড-যুক্তরাষ্ট্রের দ্বৈত নাগরিক জেন্টারের জন্ম মিনেসোটায়। ২০০৬ সাল থেকে নিউজিল্যান্ডে স্থায়ী হন তিনি। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালে প্রথম সন্তান জন্ম দেওয়ার আগেও সাইকেল চালিয়ে হাসপাতালে গিয়েছিলেন এমপি জেন্টার।

জেন্টার ফেসবুকে আরও লিখেছেন, ‘রাত দুইটার দিকে আমরা যখন হাসপাতালের উদ্দেশে রওনা করি, তখন পর্যন্ত আমার শারীরিক অবস্থা অতটা খারাপ ছিল না। তবে রওনা করার দু-তিন মিনিট পরই ব্যথা শুরু হয়ে যায়। আর হাসপাতালে পৌঁছানোর ১০ মিনিট পর ব্যথা তীব্র হয়ে যায়।’ জেন্টার জানান, সদ্যোজাত কন্যাসন্তান সুস্থ আছে। বাবার মতো দেখতে হয়েছে সে।

নিজ দল গ্রিন পার্টির পরিবহনবিষয়ক মুখপাত্রও জেন্টার। আগে থেকেই সাইকেলপ্রেমী হিসেবে পরিচিত তিনি। তাঁর ফেসবুক প্রোফাইলের ছবিতে লেখা আছে ‘আমি বাইসাইকেল ভালোবাসি’।

৫০ লাখ জনসংখ্যার দেশ নিউজিল্যান্ড। সেখানকার নারী রাজনীতিবিদেরা মাতৃত্বের ক্ষেত্রে থেকে একের পর এক নজির গড়ে তুলছেন। জেসিন্ডা আরডার্ন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর সন্তান জন্ম দিয়েছেন, মাতৃত্বকালীন ছুটি কাটিয়েছেন। এমনকি ওই শিশুসন্তানকে নিয়ে জাতিসংঘের সম্মেলনে যোগ দিয়েও আলোচনা তৈরি করেছিলেন তিনি।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন