গ্রিসের রাজধানীতে প্রথম মসজিদ চালু

0

গ্রিসের রাজধানী এথেন্সে জুমার নামাজের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে প্রথম মসজিদ। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি অনুসরনে স্বল্পসংখ্যক মুসল্লির উপস্থিতিতে এ মসজিদের কার্যক্রম শুরু করা হয়। মসজিদটির নাম দেওয়া হয়েছে ভোতানিকোস মসজিদ।

গ্রিক সরকারের অর্থায়নে প্রায় ৯ লাখ ইউরো ব্যয়ে রাজধানী এথেন্সের প্রাণকেন্দ্র সিনতাগমা স্কয়ার থেকে প্রায় চার কিলোমিটার দূরে নৌবাহিনীর একটি পরিত্যক্ত ঘাঁটির জমিতে নির্মাণ করা হয়েছে মসজিদটি। মসজিদটি একসঙ্গে ৩৫০ জন মানুষ নামাজ আদায় করতে পারবেন। তবে মিনার বা গম্বুজ না রেখে ভিন্ন কাঠামোতে মসজিদটি তৈরি করায় অসন্তোষ জানিয়েছেন দেশটিতে বসবাসরত মুসলিম জনগোষ্ঠীর অনেকে।

তুর্কি ও আলবেনিয়ান বংশোদ্ভূত ছাড়াও জন্মগতভাবে বেশ কিছু স্থানীয় মুসলিম রয়েছে গ্রিসে। থ্রেস হচ্ছে দেশটির সর্ববৃহৎ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ অঞ্চল, যেখানে শরীয়াহ আইন চালু রয়েছে।

তুরস্কের অটোমান সাম্রাজ্যের থেকে স্বাধীনতা লাভ করার পর দীর্ঘ সময়ে অতি ডানপন্থী ও রক্ষণশীল রাজনৈতিক জোটগুলোর তীব্র বিরোধিতা, বিভিন্ন ধরনের আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, অর্থোডক্স চার্চগুলোর বাধা এবং আর্থিক অনটনের মাঝে সুদীর্ঘকাল গ্রিসে মসজিদ নির্মাণের বিষয়টি আলোর মুখ দেখেনি। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের দেশগুলোর মাঝে এতদিন পর্যন্ত এথেন্স ছিল একমাত্র রাজধানী শহর যেখানে সরকারিভাবে কোনো মসজিদ ছিল না।

গ্রিসের সঙ্গে তুরস্কের রাজনৈতিক বৈরিতার কারণে দেশটির অনেক সাধারণ মানুষও মসজিদ নির্মাণের বিষয়ে প্রতিবাদমুখর ছিল। তাদের অনেকের মতে গ্রিসে নতুন করে কোনো মসজিদ নির্মাণ করার অর্থ পুনরায় দেশটিতে অটোমান সাম্রাজ্যের ইতিহাসের পুনর্জাগরণ ঘটানো। তাই ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের দেশগুলোর মাঝে এতদিন পর্যন্ত এথেন্স ছিল একমাত্র রাজধানী শহর যেখানে সরকারিভাবে কোনো মসজিদ ছিল না।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।