কেরালার ব্যাকওয়াটরে হাউজবোর্টে জলভ্রমণ

0

কেরল বা কেরালা ভারতের একটি রাজ্য। কেরল ভারতের সেরা রাজ্যগুলির অন্যতম। রাজধানী তিরুবনন্তপুরম একটি পাহাড়ের উপর অবস্থিত। কোচিন একটি গুরুত্বপূর্ণ বন্দর এবং তৈলশোধনাগার। কালিকট অপর আরেকটি বন্দর শহর। মালয়ালম ভাষা কেরলের রাজ্যভাষা। “কেরালা” নামের উৎপত্তি নিয়ে সবচেয়ে প্রচলিত মত হল “কেরা” ( মালয়ালম ভাষায) অর্থ ‘নারকেল গাছ’ ) এবং ‘আলআম’ অর্থ ‘দেশ’ বা ‘ভূমি ‘)। […]

কেরল বা কেরালা ভারতের একটি রাজ্য। কেরল ভারতের সেরা রাজ্যগুলির অন্যতম। রাজধানী তিরুবনন্তপুরম একটি পাহাড়ের উপর অবস্থিত। কোচিন একটি গুরুত্বপূর্ণ বন্দর এবং তৈলশোধনাগার। কালিকট অপর আরেকটি বন্দর শহর। মালয়ালম ভাষা কেরলের রাজ্যভাষা। “কেরালা” নামের উৎপত্তি নিয়ে সবচেয়ে প্রচলিত মত হল “কেরা” ( মালয়ালম ভাষায) অর্থ ‘নারকেল গাছ’ ) এবং ‘আলআম’ অর্থ ‘দেশ’ বা ‘ভূমি ‘)। শব্দ দুটির সমন্বয়ে সৃষ্ট, যার অর্থ দাঁড়ায় “নারকেল বৃক্ষের দেশ” ।

নামের সত্যতা মিলবে কেরালা দর্শনেই। সোনালি সাগর উপকূল, সবুজাভ নীল সাগরের স্বচ্ছ জলরাশি, ঝকঝকে-তকতকে পাহাড়ি রেলস্টেশন, নারকেল বীথির সারি, সাগর থেকে আসা পানির জলধারা বা ব্যাকওয়াটার, জিভে জল আসা খাবারের সম্ভার—এই সবকিছু মিলেই কেরালা। ভারতের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় এই প্রদেশ কেরালাকে কেউ কেউ ‘পৃথিবীর স্বর্গ’ বলেন। প্রকৃতি এখানে তার সৌন্দর্য অকাতরে এমনভাবে ঢেলে দিয়েছে যে কেরালাকে বলা হয়—‘গডস ওন কান্ট্রি’।

এ রাজ্য যে সকল মনেরাখার মত এবং অনন্য অভিজ্ঞতাগুলি আছে তার মধ্যে সহজ কিন্তু আকর্ষনীয় একটি অভিজ্ঞতা হাউসবোটে করে কেরালার ব্যাকওয়াটরে জলভ্রমণ । কেরালার ব্যাকওয়াটারগুলি আরব সাগর উপকূলের (মালাবর উপকূল হিসাবে পরিচিত) সমান্তরালভাবে ব্র্যাক লেগুনস এবং হ্রদগুলির একটি নেটওয়ার্ক, পাশাপাশি আন্তঃসংযুক্ত খাল, নদী এবং খাঁড়ি নিয়ে একটি গোলকধাঁধা সিস্টেমেরও বেশি দ্বারা গঠিত ৯০০ কিলোমিটারেরজলপথ । কার্যত কেরালার রাজ্যের প্রায় অর্ধেক দৈর্ঘ্যে প্রসারিত নেটওয়ার্কটিতে পাঁচটি বড় হ্রদ, যেগুলো প্রাকৃতিক ও মানব সৃষ্ট খাল দ্বারা সংযুক্ত এবং ৩৮ টি নদী দ্বারা প্রতিপালিত। এই প্রাকৃতির মাঝে বেশ কয়েকটি শহর এবং শহর রয়েছে যা ব্যাকওয়াটার ক্রুজগুলির শুরু এবং শেষ পয়েন্ট হিসাবে কাজ করে।

কেরালার ব্যাকওয়াটার অঞ্চলগুলি বিশ্বের সব থেকে জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্যস্থানগুলির মধ্যে অন্যতম। সর্বোত্তম বিস্ময়কর প্রাকৃতিক দৃশ্য হিসেবে বিশ্ব একে স্বীকার করেছে। আরব সাগরের সমান্তরালে অবস্থিত শান্ত বিস্তীর্ণ লেক, খাল এবং লেগুনের পর্যটনের অভিজ্ঞতা জীবনভর থেকে যায়। ‘প্রাচ্যের ভেনিস’ নামে পরিচিত আলাপ্পুজহা বিশেষরূপে জনপ্রিয় এর হাউসবোট ক্র্যুজের জন্য, যেখানে প্রকৃতির সুন্দরতম অংশের সাথে নিজেকে ভিজিয়ে নিতে পারবেন।

হাউজবোর্টে ব্যাকওয়াটরে জলভ্রমণে নব দম্পতি । ছবি : কেরল ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন
হাউজবোর্টে ব্যাকওয়াটরে জলভ্রমণে নব দম্পতি । ছবি : কেরল ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন

ব্যাকওয়াটারে জল ভ্রমণের জন্য এখানেপ্রচুর সংখ্যায় হাউসবোট রয়েছে। আরামপ্রদ ভ্রমণের জন্য ধীরে প্রবাহিত চলমান বার্জ ব্যবহৃত হয়। সেগুলি আদতে প্রাচীনকালের কেট্টুবল্লমের উন্নত সংস্করন। মুল কেট্টুবল্লমগুলি ব্যবহৃত হত টন টন ধান এবং মশলা বহন করার জন্য। একটি সাধারণ মাপের কেট্টুবল্লম কুট্টনাদ থেকে কোচি পোর্ট অবধি 30 টন পর্যন্ত্য মাল বহন করতে পারে।

মালায়লাম ভাষায় কেট্টু কথার অর্থ হল ‘বাড়ির কাঠামো’, ‘বল্লম’ কথার অর্থ হল নৌকা। এই নৌকোগুলিতে কাঠের কাঠামোর উপরে খড়ের ছাউনি দেওয়া থাকে। কাঠাল কাঠের তক্তা একসাথে যুক্ত করে নারকেলের দড়ি দিয়ে বেঁধে তৈরি করা হয়। তারপরে কাজুবাদামের শাঁস সিদ্ধ করে গাঢ় কালোরঙ্গের রেজিন প্রস্তুত করে তার উপরে প্রলেপ দেওয়া হয়। সাবধানে রক্ষণাবেক্ষণ করতে পারলে একটি কেট্টুবল্লম কয়েক প্রজন্ম টিঁকতে পারে।

কেট্টুবল্লমের একটি অংশ বাঁশ এবং নারকেলের দড়ি দিয়ে ছাউনি করা থাকে,মাঝিরা সেখানে রান্নাবান্না করে এবং বিশ্রাম নেয়। খাবারের উপরেই রান্না করা হয় এবং ব্যাকওয়াটার থেকে মাছ সংগ্রহ করে রান্না হয়ে থাকে।

বর্তমান পরিবহন ব্যবস্থাতে ট্রাক যখন পরিবহনের স্থান দখল করে নেয়, এই নৌকোগুলিকে ভিন্নভাবে ব্যবহার করার নতুন পথ মানুষ খুঁজে নেয়। চলতি হাউসবোটগুলির মধ্যে প্রায় সবকটি ১০০ বছরেরও বেশী পুরনো। পর্যটকদের সুবিধার জন্য এরমধ্যে বিশেষ ঘর নির্মাণ করে প্রায় লুপ্ত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা পেয়ে বর্তমানে এগুলি জনপ্রিয়তার লক্ষ্যে এগিয়ে চলেছে। আলাপ্পুজহার ব্যাকওয়াটরে বোটে ভ্রমণ এখন পরিচিত দৃশ্য, শুধুমাত্র আলাপ্পুজহাতেই প্রায় ৫০০ হাউসবোট রয়েছে।

কেট্টুবল্লমগুলিকে হাউসবোটে রূপান্তরিত করার ক্ষেত্রে সাবধাণতা অবলম্বন করার জন্য শুধুমাত্র প্রাকৃতিক দ্রব্যই ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ছাদের জন্য বাঁশের মাদুর, কঞ্চি এবং সুপারিগাছের কাঠ ব্যবহার করা হয়। নারকেলের ছোবার মাদুর এবং কাঠের পাটাতন ব্যবহৃত হয় মেঝে করার জন্য, বিছানার জন্য ব্যবহার করা হয় নারকেল গাছের কাঠ ও দড়ি। আজকাল, আলো জ্বালাবার জন্য সোলার প্যানেল ব্যবহৃত হচ্ছে।

বর্তমানে, হাউসবোটগুলিকে একটি ভালো হোটেলের সমান সুযোগ সুবিধা প্রদানের জন্য উন্নত করা হয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে সাজানো গোছানো শোবার ঘর, আধুনিক শৌচালয়,আরামদায়ক বৈঠক্ষানা, একটি রান্নাঘর এবং এমনকি মাছধরার জন্য একটি ব্যালকনিও রয়েছে। মাথার উপরের কাঠের বা ভাঁজ করে রাখা খেজুরপাতার বক্র ছাউনির কিছুটা অংশ খুলে রাখা হয় দৃষ্টিপথ যাতে বিঘ্নিত না হয়। বেশীরভাগ হাউসবোট, স্থানীয় মাঝিরাই দাড় টেনে বয়ে নিয়ে যায়, কিছু হাউসবোট ৪০ অশ্বশিক্তর-র ইঞ্জিন দিয়ে চালানো হয়ে থাকে। বেশীসংখ্যক পর্যটকদের জন্য দুই বা তত্তোধিক হাউসবোটকে পরপর জুড়ে হাউসবোট-ট্রেন তৈরি করা হয়ে থাকে।

ব্যাকওয়াটরে হাউজবোর্ট । ছবি : কেরল ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন

হাউসবোটে ভ্রমণের আসল মজা হল, যখন আপনি এতে চড়ে আরামে ভ্রমণ করবেন সেই সময় কেরালার স্পর্শহীন অথবা অগম্য গ্রাম্য জীবনের উত্তেজনাপূর্ণ দৃশ্য উপভোগ করতে করতে যাবেন।

হাউসবোটগুলি পাওয়া যায় তিরুবানন্তপূরম, কোল্লম, কোট্টায়ম, আলাপ্পুজহা, এরনাকুলম, থ্রিসসুর এবং কাসারগদ-এ। আরও জানার জন্য যোগাযোগ করুন ডিটিপিসি-তে।
ডিটিপিসি হাউসবোট প্রি-পেইড কাউন্টার, আলাপ্পুজহা।

হাউসবোট বুক করার জন্য ডিস্ট্রিক্ট টুরিজম প্রমোশন কাউন্সিল(ডিটিপিসি) পরিচালিত হাউসবোট প্রি-পেইড কাউন্টার ‘ ট্রাস্টেড সার্ভিস, ট্রাস্টেড রেটস’- এর সহায়তা নিতে পারেন।
যোগাযোগের ঠিকানা : আলাপ্পুজহা হাউসবোট প্রি-পেইড কাউন্টার। মোবাইল নং: +91 9400051796, +91 9447483308 । ফোন: +91 477 2251796, +91 477 2253308

 

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।