কুয়েতের আমির পেলেন যুক্তরাষ্ট্রের বিরল সম্মাননা, বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতের অভিনন্দন

0

আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক কূটনৈতিক ক্ষেত্রে অবদানের জন্য কুয়েতের আমির সাবাহ আল-আহমেদ আল-জাবের আল-সাবাহ পেলেন যুক্তরাষ্ট্রের বিরল মর্যাদাপূর্ণ সম্মাননা । শুক্রবার হোয়াইট হাউজে ‘লিজিওন অব মেরিট’ সামরিক সম্মাননায় ভূষিত করা হয় কুয়েতের ৯১ বছর বয়সী আমিরকে।

হোয়াইট হাউসে এক ঘরোয়া অনুষ্ঠানে এ সম্মাননা প্রদান করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কুয়েতের আমিরের জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ নাসের সাবাহ আল-আহমাদ আল-জাবের আল-সাবাহ হোয়াইট হাউসে বাবার পক্ষে সম্মাননাটি গ্রহণ করেছেন। শারিরীকভাবে অসুস্থ থাকায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেননি আমির আল-সাবাহ।

আঞ্চলিক এবং বৈশ্বিক ক্ষেত্রে কুয়েতের আমিরের অক্লান্ত প্রচেষ্টা ও উল্লেখযোগ্য নেতৃত্বের কারণে তাঁকে এই সম্মান দেয়া হয়েছে। তাছাড়া দশকের পর দশক ধরে কুয়েত এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ঐতিহাসিক এবং বিশিষ্ট অংশীদারিত্বের প্রতি সম্মান জানানোটাও একটা উদ্দেশ্য ছিল। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে, উভয় দেশের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপনের আসন্ন ৬০ তম বার্ষিকীতে দেয়া হল এমন বিরল সম্মাননা।

হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যে বিরোধ নিষ্পত্তিতে কুয়েতে আমিরের অক্লান্ত মধ্যস্থতায় অনেক চ্যালেঞ্জপূর্ণ মতভেদ দূর হয়েছে। “লিজিয়ন অফ মেরিট”, খুবই বিরল একটি সম্মাননা। এটি সাধারণত কোন দেশের রাষ্ট্র প্রধানদের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রদান করা হয়ে থাকে। এই সম্মান সর্বশেষ ১৯৯১ সালে প্রদান করা হয়েছিল।

এমন বিরল সম্মাননা পাওয়ায় কুয়েতের আমির শেখ সাবাহ আল-আহমদ আল-জাবের আল-সাবাহ-এর প্রতি আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছে ইয়েমেনসহ কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মো. আশিকুজ জামান,এনডিসি,এফডাব্লিউ,পিএসসি,জি।

মহামান্য আমিরের কাছে পাঠানো শুভেচ্ছা বার্তায় রাষ্ট্রদূত বলেন, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক কূটনৈতিক ক্ষেত্রে অবদানের জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট দ্বারা মর্যাদাপূর্ণ ‘লিজিওন অব মেরিট’ সামরিক সম্মাননায় ভূষিত হওয়ায় আমরা আনন্দিত, গর্বিত। এই বিরল সম্মাননায় প্রমাণ মেলে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে শান্তি ও সুরক্ষা জোরদার করতে মহামান্য আমিরের শীর্ষস্থানীয় ভূমিকা, পাশাপাশি কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে শ্রদ্ধা অর্জন।

তিনি আরও বলেন, আমি দৃঢভাবে বিশ্বাস করি যে, কুয়েত-বাংলাদেশ দুই দেশের মধ্যকার বিদ্যমান সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক এবং সহযোগিতা আমাদের জনগণের পারস্পরিক সুবিধার জন্য মহামান্য আমিরের নেতৃত্বে যৌথ প্রচেষ্টার মাধ্যমে আরও সংহত ও জোরদার হবে।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।