কুয়েতে বিমান চলাচল স্থগিতে কোন ছাড় দেওয়া হয়নি

0

কুয়েতে বিমান চলাচল স্থগিত এবং স্থল ও সমুদ্রবন্দর বন্ধের সিদ্ধান্ত তুলে নেওয়া বা ছাড় দেওয়ার কোন পরিকল্পনা নেওয়া হয়নি। এ তথ্য নিশ্চিত করে সরকারের মুখপাত্র তারিক আল-মুজরিম বলেছেন যে, মন্ত্রীসভার নেওয়া ১ লা জানুয়ারি পর্যন্ত বন্ধের সিদ্ধান্ত এখনও কার্যকর রয়েছে।

করোনার নতুন ধরণ প্রতিরোধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে কুয়েত মন্ত্রিপরিষদের সিদ্ধান্ত কার্যকর করার জন্য ১ লা জানুয়ারি পর্যন্ত সকল বন্দর পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

আরব টাইমস জানিয়েছে, বিশেষ বিবেচনায় আটকে থাকা যাত্রীদের জন্য কয়েক ঘন্টা সালমি ও নুওয়াইসিব বর্ডার উন্মুক্ত করা হয়েছিল। এছাড়া দুটি ফ্লাইট আজ কুয়েত বিমানবন্দরে অবতরণ করে এবং তৃতীয় একটি ফ্লাইটটি বাতিল করা হয়েছিল।

দৈনিক আল-রাই জানিয়েছে, ৫৫০ জন কুয়েতি নাগরিক সালমি ও নুওয়াইসিব সীমান্ত দিয়ে দেশে প্রবেশ করেছে এবং বন্ধের নির্দেশ দিয়ে স্থলবন্দরগুলি আবার বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত কোনও ভ্রমণকারীকে স্থল সীমান্ত পেরোনোর ​​অনুমতি দেওয়া হবে না। সূত্র জানিয়েছে যে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বন্দরের সৌদি পক্ষকে অবহিত করেছে যে, কুয়েত কোনও যাত্রী পার হতে না দেবে।

সৌদি আরবের কুয়েত দূতাবাস নিশ্চিত করেছে যে, মন্ত্রিপরিষদের সিদ্ধান্ত মেনে কুয়েতের স্থল সীমান্ত বন্ধ রয়েছে এবং নাগরিকদের সাহায্যের প্রয়োজনে ফোনে যোগাযোগ করার আহ্বান জানিয়েছে।

বন্ধের সিদ্ধান্তের ফলে দুবাই বিমানবন্দরে আটকে থাকা ৩০০ জনেরও বেশি যাত্রী আটকে পড়েছিলেন, যাদের মধ্যে ১৩০ জন কুয়েতি, যাদের মধ্যে বেশিরভাগই সংযুক্ত আরব আমিরাতে পড়াশোনা করা নারী ও ছাত্রী।

কুয়েতের নাগরিক আবদুল্লাহ আল মুতাওয়া টেলিফোনে বলেছিলেন যে, অনেক কুয়েতির শিক্ষার্থী এবং পরিবার দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মাঠে দু’দিন ধরে ঘুমোচ্ছেন, তাদের বিমান চলাচল বাতিল হওয়ার পরে।

ডিজিসিএ সূত্র জানিয়েছে যে, দুটি দেশ ফ্লাইটে বিভিন্ন দেশ থেকে আটকে থাকা কুয়েতির নাগরিককে নিয়ে এসেছিল। বৃহস্পতিবার সকালে বৈরুত থেকে যে ফ্লাইটটি আসার কথা ছিল তা বাতিল করা হয়েছিল এবং বিমানবন্দর বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। চিকিত্সা সরবরাহ ও পণ্য বহনকারী কার্গো বিমানগুলি এই নিষেধাজ্ঞা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।