ওমানে বাংলাদেশিদের প্রবেশ নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বৃদ্ধি, মসজিদ খোলার অনুমতিসহ বিধি-নিষেধ শিথিল

0

ওমানে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানসহ ১২ দেশ থেকে প্রবেশ নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া নতুন তিনটি দেশ নিষিদ্ধ তালিকায় নিয়েছে। শনিবার (৫ জুন) দুপুর ২ টা থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে।

একই সঙ্গে দেশটিতে মসজিদ খোলার অনুমতি, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের রাত্রিকালীন বন্ধ রাখার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারসহ বেশ কিছু বিধি-নিষেধ শিথিল করা হয়েছে।

দেশটির কোভিড -১৯ প্রতিরোধে নিয়োজিত সুপ্রিম কমিটির বুধবারের বৈঠকে এই সব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। করোনা প্রাদূর্ভাব প্রতিরোধে গত আগামী ২৪ এপ্রিল সন্ধ্যা থেকে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তান থেকে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল।

ওমান নিউজ এজেন্সি (ওএনএ) অনলাইনে জারি করা বিবৃতিতে বলা হয়, “সুপ্রিম কমিটি পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত যুক্তরাজ্য, সুদান, ব্রাজিল, নাজিরিয়া, ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, মিশর,ফিলিপাইন, তানজানিয়া, সিয়েরা লিওন, ইথিওপিয়া, থেকে ওমানে প্রবেশের স্থগিতাদেশের মেয়াদ বাড়িয়েছে। এ ছাড়া থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনামও থেকে প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। সুপ্রিম কমিটি এইসব দেশে ওমানের নাগরিকদের ভ্রমণ এড়ানোর পরামর্শ দিয়েছে।

সুপ্রিম কমিটির সিদ্বান্ত অনুযায়ী, শুক্রবার জুমার নামাজ ছাড়া প্রতিদিন ৫ ওয়াক্তের নামাজের জন্য মসজিদগুলো খোলা হবে। তবে সর্বোচচ ১০০ জন মুসুল্লী উপস্থিতি এবং ধর্ম মন্ত্রণালয়ে নির্দেশিত স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি ও শর্তাদি অনুসরণ করতে হবে।

কমিটিও রাত ৮ টা থেকে ভোর ৪ টা পর্যন্ত সকল প্রদেশের বাণিজ্যিক কার্যক্রম বন্ধ রাখার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বাণিজ্যিক দোকান, রেস্তোঁরা ও ক্যাফেতে তাদের সক্ষমতার ৫০% গ্রাহক গ্রহণে খোলা রাখাসহ ১২ বছরের কম বয়সী শিশুদের শপিংমল, রেস্তোঁরা ও ক্যাফ এবং অন্যান্য পাবলিক জায়গাগুলিতে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

বিবাহের হল এবং অন্যান্য বড় বাণিজ্যিক কার্যক্রমের খোলার অনুমতি দিয়েছে, তবে শর্ত থাকে যে উপস্থিতির হার তার সক্ষমতাের ৩০% অতিক্রম না করে এবং বৃহত্তর ক্ষমতা সম্পন্ন হলগুলির জন্য৩০০ জন লোকের বেশি না হয় এবং সকলকে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা এবং প্রয়োজনীয়তা মেনে চলতে হবে।

সীমান্তবর্তী জিসিসি দেশগুলি কর্মরত ওমানি এবং প্রবাসীদের নিয়োগকর্তার কাছ থেকে তাদের কাজের প্রয়োজনীয়তার প্রমাণ উপস্থাপনের সাপেক্ষে স্থল সীমানা পেরিয়ে ভ্রমণ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া সমাবেশে এড়ানো এবং সবল প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থাগুলি মেনে চলার বিষয়ে জোর দিয়ে সৈকত ও পাবলিক পার্ক খোলা, উন্মুক্ত স্থানে গ্রুপ স্পোর্টস কার্যক্রম এবং ক্ষমতার ৫০% গ্রাহক উপস্থিতিতে জিমগুলি আবার খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন