ইতালিপ্রবাসীদের দেশে ফেরার সব পথ বন্ধ

0

করোনার প্রকোপে চীনের পর ইতালিই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। প্রতিদিনই বাড়ছে মৃতের মিছিল। সবেশ তথ্য অনুযায়ী মৃতের সংখ্যা ১,৪৪১ জন এবং আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২১ হাজার ১৫৭ জন । ইতালির ২০ টি প্রদেশের সবগুলোতেই করোনায় আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় পুরো ইতালিকে কার্যত অবরুদ্ধ ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। গৃহবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ৬ কোটি মানুষ। অন্যদিকে ইতালি রুটে সারাবিশ্বের বিমান সংস্থাগুলোর ফ্লাইট স্থগিত হওয়ায় প্রবাসী বাংলাদশেিদের দেশে ফেরার সব পথ বন্ধ হয়ে গেছে।

ইতালি থেকে বাংলাদেশে আগামী ৩ এপ্রিল পর্যন্ত সব ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। একমাত্র চালু থাকা কাতার এয়ারও অন্যদিকে ইতালি রুটে সারাবিশ্বের বিমান সংস্থাগুলোর ফ্লাইট স্থগিত হওয়ায় প্রবাসী বাংলাদশেিদের দেশে ফেরার সব পথ কার্যত বন্ধ হয়ে গেছে।

ইতালি থেকে বাংলাদেশে আগামী ৩ এপ্রিল পর্যন্ত সব ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। একমাত্র চালু থাকা কাতার এয়ারওয়েজের ফ্লাইটটিও বন্ধ হয়ে যেতে পারে যে কোন সময় । চরমভাবে ভোগান্তির মধ্যে ইতালির প্রায় দু’লাখ প্রবাসী কার্যত ৩ এপ্রিল পর্যন্ত অবরুদ্ধ হয়ে পড়ল। অন্যদিকে বিপুল আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়তে যাচ্ছে ট্রাভেল এজেন্সিগুলো ।

ট্রাভেল এজেন্সিগুলোর সূত্রে জানা গেছে, ইতালি থেকে ঢাকা রুটে সবচেয়ে বেশি যাত্রী পরিবহন করে এমিরেটস, কাতার এয়ারওয়েজ ও তুর্কি এয়ালাইন্স। এর মধ্যে সবশেষ চালু থাকা এমিরেটস এয়ারওয়েজের শেষ ফ্লাইট ইতালির রাজধানী রোম ত্যাগ করে শনিবার। রবিবার থেকে আগামী ৩ এপ্রিল পর্যন্ত সব ফ্লাইট বাতিল করেছে এমিরেটস।

রবিবার পর্যন্ত যাত্রী পরিবহন করবে কাতার এয়ারওয়েজ, এরপর সেটিও বন্ধ ঘোষণা করা হবে বলে জানা গেছে। এর আগে তার্কিশ এয়ারলাইন্স , কুয়েত এয়ারওয়েজসহ অন্যান্য সব বিমানসংস্থা ইতালি গন্তব্যের ফ্লাইট বাতিল করে। তার্কিশ এবং কুয়েত আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ বন্ধ থাকবে।

সারাবিশ্বের ফ্লাইট বাতিল হওয়ায় ফাঁকা পড়ে আছে বিমানবন্দর
সারাবিশ্বের ফ্লাইট বাতিল হওয়ায় ফাঁকা পড়ে আছে বিমানবন্দর

এসব ফ্লাইট বন্ধের কারণে হাজার হাজার যাত্রী ভোগান্তির মধ্যে পড়েছে। পরবর্তী ফ্লাইট কখন পাবেন, ৩ এপ্রিল আদৌ চালু হবে কী না সে বিষয়ে কোন সঠিক সিদ্ধান্তও কেউ দিতে পারছে না। এর আগে অনেক ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা করলেও রিসিডিউল করে অন্য বিমানে টিকেট করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু এখন সব ফ্লাইট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সে উপায়ও নেই।

ইতালির সরকারি ঘোষণা অনুযাায়ী দেশটির ট্রাভেল এজেন্সিগুলো ২৫ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকছে। ফলে এজেন্সিগুলোও কাজ করতে পারছে না, যাত্রীরাও এজেন্সিতে আসতে না পারায় দুশ্চিন্তায় পড়েছে।

অপরদিকে, বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে ট্রাভেল এজেন্টগুলো। হাজার হাজার টিকেট বাতিল হওয়ায় যাত্রীদের টাকা ফেরত দিতে হচ্ছে। আর এসব টাকা বিমানসংস্থাগুলো থেকে ফেরত পাওয়া সময় সাপেক্ষ।

ইতালির বাংলাদেশি মালিকাধীন পপুলার ট্রাভেলসের ব্যবস্থাপানা পরিচালক মো. শাহাদাত হোসাইন সাজু জানান, যাত্রীদের সাময়িক ভোগান্তি হচ্ছে তবে আশা করি পরিস্থিতির উন্নতি হলেই বিমান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে যাবে। টিকেট বাতিল হওয়া যাত্রীদের চিন্তার কিছু নেই। অফিস খুলে দেয়ার পরপরই যাত্রীদের চাহিদা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে শনিবার সকালে ইতালিফেরত ১৪২ বাংলাদেশিকে রাজধানীর আশকোনা হজ ক্যাম্প থেকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার জন্য যার যার বাড়িতে পাঠানো হয়েছে।

শনিবার (১৪ মার্চ) সকালে দুবাই হয়ে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ঢাকায় ফেরার পর তাদেরকে হজ ক্যাম্পে রাখা হয়। তবে তাদের শরীরে করোনার লক্ষণ না থাকায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

শনিবার রাতে আশকোনা হজ ক্যাম্পে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ।

তিনি বলেন, তাদের বাড়ি পর্যন্ত নজরদারিতে রাখা হবে। বাড়ি গিয়েও তারা কোয়ারেন্টাইনের শর্ত পালন করবেন। কয়েকজন হয়তো রাতে নিরাপত্তার কারণে ক‌্যাম্পে থাকবেন। দুপুরে দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে তাদের খাবার ব‌্যবস্থা করা হয়েছিল। রাতেও তাদের খাবার দেওয়া হবে।

ইতালিফেরত ১২৬ বাংলাদেশিকে রাখা হয়েছে হজ ক্যাম্পে
ইতালিফেরত ১২৬ বাংলাদেশিকে রাখা হয়েছে হজ ক্যাম্পে

ডা. আবুল কালাম আজাদ আরো বলেন, শুনলাম আজ রবিবার আরো ১৫৫ জন ইতালি থেকে ফিরবেন। তাদেরকে আমরা প্রথমে গাজীপুরের একটি ট্রেনিং সেন্টারে কোয়ারেন্টাইনে রাখব। পরে তাদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ঘোষণা দেন, প্রয়োজনে সরকারি তত্ত্বাবধানে ইতালিফেরত বাংলাদেশিদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে। তার ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার সকালে ইতালি থেকে আসা ১৪২ বাংলাদেশিকে আশকোনা হজ ক্যাম্পে পাঠানো হয়।

এদিকে শনিবার স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ইতালির উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রী পিয়েরপাওলো সিলারি করোনভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁকে বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

Loading...