আমিরাতে সবার আগে করোনা ভ্যাকসিন নিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

0

সংযুক্ত আরব আমিরাতের স্বাস্থ্যমন্ত্রী আবদুল রহমান আল ওয়াইস দেশটিতে জরুরি ভিত্তিতে দেওয়া করোনার ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন। ভ্যাকসিনটি শুরুতে দেশটির স্বাস্থ্যকর্মীদের দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছিল । তার আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী নিজে ভ্যাকসিনটি নেন।

আরব নিউজ প্রতিবেদনে জানানো হয়, চীনা প্রতিষ্ঠান সিনোফার্মের তৈরি করা এ ভ্যাকসিনটি সংযুক্ত আরব আমিরাতে তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা চলছে। সেখানকার হাজারো স্বেচ্ছাসেবীর ওপর পরীক্ষা করার পর ভ্যাকসিনের ডোজ তৈরি করা হয়েছে। গত সোমবার সিনোফার্মের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়। পরীক্ষা শুরুর ছয় সপ্তাহ পরই তা জরুরি ব্যবহারের জন্য অনুমতি দিয়েছে দেশটি।

সিনোফার্মের পক্ষ থেকে গত জুলাই মাসে আরব আমিরাতে ভ্যাকসিন পরীক্ষার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। পরীক্ষামূলক ভ্যাকসিনর প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপ সফল হয়েছে বলে দাবি করা হয়। এ সময় ২৮ দিনের ব্যবধানে দুই ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়ার পর শতভাগ স্বেচ্ছাসেবীর শরীরে অ্যান্টিবডি পাওয়া যায়।

দেশটির ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি ক্রাইসিস অ্যান্ড ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অথোরিটি এক টুইটে বলেছে,ভ্যাকসিনটি ভাইরাসের সংস্পর্শে আসার সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে থাকা প্রতিরক্ষাকাজে নিয়োজিত প্রথম সারির নায়কদের দেবে তারা। পরীক্ষাধীন থাকা ভ্যাকসিনের জরুরি ব্যবহারের অনুমতি দেওয়ার বিষয়টি ২১ হাজার স্বেচ্ছাসেবীর ওপর পরীক্ষা চালানোসহ কয়েকটি মানদণ্ডের ওপর ভিত্তি করে দেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আল ওয়াইস বলেছেন, আরব আমিরাত সম্মুখসারির নায়কদের জন্য সবধরনের নিরাপত্তাব্যবস্থা নেবে। করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে থাকার কারণে যেকোনো বিপদ থেকে তাঁদের রক্ষা করা হবে।

সোমবার টেলিভিশনে প্রচারিত এক সংবাদ সম্মেলনে দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ভ্যাকসিনটি সম্পূর্ণ আইন ও নিয়ম মেনে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এটি নিরাপদ ও কার্যকর প্রমাণ হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবীদের ওপর পরীক্ষার এটি অ্যান্টিবডি তৈরি করে শক্তিশালী প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে।

আরব আমিরাতে চালানো ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ৩১ হাজার স্বেচ্ছাসেবীকে যুক্ত করা হয়। আরব আমিরাতে বসবাসকারী ১২৫টি দেশের নাগরিকেরাও এতে অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন।

দেশটির চিকিৎসক নাওয়াল আল কাব্বি বলেছেন, পরীক্ষার প্রাথমিক ফলাফল উৎসাহব্যঞ্জক। এতে খুব সামান্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়। স্বেচ্ছাসেবকদের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হতে দেখা গেছে।

আরব আমিরাতের চিকিৎসকেরা বলছেন, ভ্যাকসিন পরীক্ষার সময় বিভিন্ন রোগ ও জটিলতায় ভুগতে থাকা এক হাজার ব্যক্তিকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। তাঁদের কোনো মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। এতে কেবল সাধারণ ফ্লু ভাইরাসের মতো গলাব্যথার মৃদু উপসর্গ দেখা দিতে পারে। সিনোফার্ম প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের ভ্যাকসিন পরীক্ষা চালিয়েছিল চীনে। পরের ধাপের পরীক্ষার জন্য আরব আমিরাত, বাহরাইন ও জর্ডানকে বেছে নেয়।

সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোলের তথ্য অনুযায়ী, ইনঅ্যাক্টিভেটেড ভ্যাকসিন হিসেবে যে ভ্যাকসিন তৈরি করা হয়, এতে মৃত ভাইরাস বা ভাইরাস থেকে সংগৃহীত প্রোটিন ব্যবহৃত হয়। ভ্যাকসিন তৈরির এ প্রক্রিয়া ইনফ্লুয়েঞ্জা ও হামের বিরুদ্ধে পরীক্ষিত।

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।